ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

অবশেষে অবসান হল, “no vat on education” আন্দোলন। বেসরকারি ভার্সিটির ছাত্রছাত্রীগন পেলেন তাদের আন্দোলনের ফসল।

জনগন কি কিছু পেলেন না হারালেন? এমন কি কখনো মনে প্রশ্ন এসেছে আপনার? হয়ত হ্যা অথবা না।

এই বাজেটে যেসব পণ্যের মূল্য বেড়েছে তার মধ্যে গ্যাস, বিদ্যুৎ, তেল ও যে আছে তা নিয়ে তেমন আলোচনা নেই। বলতে পারেন কেন? কারণ, বেসরকারি ভার্সিটির উপর বসানো ৭.৫% ভ্যাট। সকলের চোখ ছিল এই আন্দোলনের উপর তাই ১লা সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হল গ্যাস বিলের সাথে ২০০ টাকা মূল্য যুক্ত। মানে ৪৫০+২০০=৬৫০ টাকা। যার বৃদ্ধির পরিমাণ ৪৪.৪%। বাড়লো বিদ্যুৎ বিল। বাস ভাড়া সর্বনিম্ন নির্ধারিত হল ৭টাকা। এ নিয়ে হলোনা কোন প্রতিবাদ। গ্যাস বিল এক বারে প্রায় ৫০% বাড়লো, এক দিনের বিক্ষোভ দেখলাম। যে খবর চাপা পড়ে গেল নো ভ্যাটের ভিড়ে।

যেই ব্যক্তির মাসিক আয় পাঁচ হাজার টাকা সেই লোকের সংসারের খরচ বাড়লো (৪★৩০=১২০)+২০০+২১=৩৪১ টাকা।(যাতায়াত + গ্যাস+বিদ্যুৎ)

এছাড়াও বেড়েছে সকল নিত্যপ্রয়োজনিয় পণ্যের দাম।

তার বিপরীতে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন হল দুই গুন। জনগনের কথা কি ভাবলো সরকার?

না। আমাদের শিক্ষিতের হার বেড়েছে ঠিকই, কিন্তু আমরা এখনো আত্ন-সার্থ বুঝতে শিখিনাই। তাই সকল কাজে আমরা এখনো ঘুষ দেই, অপেক্ষার বেঞ্চে বসে থাকি ঘন্টার পর ঘন্টা। মন্ত্রি বলতে পারেন, “ঘুষ নেওয়া অপরাধ নয়।”

তাই আমাদের এখন ও খুজে ফিরতে হয় কবির মত করে-

“আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে,

কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে।”