ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

গাঁদা ফুলের রস। সত্যিই অনেক কাজের…।

অল্পস্বল্প কেটে গেছে, বা ছিলে গেছে, বা পুড়ে গেছে… সঙ্গে সঙ্গে গাঁদা ফুলের পাতা চিপে রস বের করে লাগান, সেরে যাবে। তবে প্রথমে একটু জ্বলতে পারে।
এর ফুলও অনেক কাজের। কাটা ছেঁড়ায় ব্যবহারকরতে পারেন।

টবে বিদেশী কোনো গাছ না লাগিয়ে একটা দুইটা দেশি গাঁদা ফুল লাগিয়ে রাখুন। বাড়ির পতিত স্থানগুলোতে শুকনো গাঁদা ফুল ছড়িয়ে দিন। এরপর আপনাকে আর ভাবতে হবেনা। একসময় দেখবেন ফুলের গন্ধে মোহিত হয়ে পড়েছেন।

তুলসি গুন তো আমাদের সবার জানা। তুলসী গাছও গাঁদার মতোই লাগিয়ে রাখুন। নিজের কাছেই ভালো লাগবে। কখনও তুলসী চা খেয়েছেন? পারলে কয়েকদিন খেয়ে দেখেন। আর কাশি বা ঠান্ডা লাগায় তুলসী মধু খেয়ে সুস্থ থাকার কথা তো বলেছিই।

এরপর দুর্বা। কখনও যদি সামন্য কেটে যায়, ছড়ে যায়, বা আঘাতও পান। দুর্বার কচি ডগা ছেঁচে লাগিয়ে রাখুন। দুর্বার রস আঘাত পাওয়া স্থানে লাগান ।

মেহেদীর রস সপ্তাহে দুই দিন চুলে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখুন। পুরো মেহেদীও রাগাতে পারেন। তবে রসই ভালো।

চুল সিল্কি করতে চুল ভালো করে পরিস্কার করার পরে পাতি লেবু দিয়ে ম্যাসাজ করুন।

শশার পাতলা খোসার অংশটি চোখের নীচের অংশে কিছুক্ষন রাখুন। মাঝে মাঝে পাকা কলা মুখে মেখে কিছুক্ষণ রাখুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। কমলার খোসা মুখে মাখতে পারেন।

কাঁচা হলুদ, নিমের পাতা, বেঁটে এবং খাঁটি শরীষার তেল একসঙ্গে নিয়ে শরীরে মাখুন। বছরে একবার হলেও। তারপর রোদে ১/২ মিনিট দাঁড়ান। পরে গোসল করে ফেলুন।

নিজেকে প্রান্তবন্ত রাখুন। নিজেকে মুল্যবান ভাবুন। সবসময়ই মনে করুন প্রথম প্রেমের প্রথম ডেটিংয়ে যাচ্ছেন। দেখবেন…. নো টেনশেন ভালো আছেন…সুস্থ আছেন।