ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

বাংলাদেশকে ডিজিটাল বলতে হলে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের বিকল্প নেই। সে লক্ষে সরকার কতোটুকু সফল তার বিচার জনগনের হাতেই। তবে, তথ্যপ্রযুক্তির অন্যতম বড়ো আয়োজন ‘ই-এশিয়া ২০১১’ শুরু হয়েছে আজ ১ ডিসেম্বর সকাল থেকেই। এ আয়োজন ঘিরে অনেক উৎসাহ দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন মিডিয়ায় বেশ ফলাও করে প্রচারণা চালানো হয়েছে।

আয়োজন আজ সকালে উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সঙ্গে ছিলেন তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়।

শেখ হাসিনা যথারীতি আয়োজন উদ্বোধনে তার বুলি আউড়েছেন। তবে, বাস্তবতা কতোখানি সত্য সেটা সবারই জানা। ই-এশিয়াকে ঘিরে বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্র সাজানো হয়েছে দারুণ। শুরুতেই চোখে পড়বে দারুণ আয়োজন। এরকম একটা আয়োজনের আসলে দরকার ছিলো।

তিন দিনের এ আয়োজনে সিএসডিএমএসকে সহযোগিতা দিচ্ছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এবং বিজ্ঞান এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়।

সম্মেলনের তিন দিনে তথ্য-প্রযুক্তি খাত সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে ৩০টি সেমিনার ও কর্মশালা হবে। সম্মেলনের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের আইসিটি পণ্য ও সেবা নিয়ে প্রদর্শনী, সেমিনার ও মেলার আয়োজনও রয়েছে। এ মেলায় পা পড়বে ইনটেল ভিপি এবং ওডেস্ক কর্মকর্তারও।

৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সম্মেলনের পাশাপাশি চলবে তথ্য-প্রযুক্তি মেলা। মেলার প্রবেশমূল্য ১০ টাকা ধরা হলেও শিক্ষার্থীরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিনামূল্যে প্রবেশ করতে পারছে।

মেলার প্রথম দিন উদ্বোধনের পর থেকেই তরুণদের সমাগম ছিলো। দেখেই ভালো লাগে…ই-এশিয়ার এমন আয়োজন তথ্যপ্রযুক্তিকে কতোটুকু এগিয়ে দেবে তা বিবেচনার চেয়ে চারিদিকে প্রযুক্তির একটা দারুণ পরিবেশ দেখতেই ভালো লাগছে…আশা করি এ আয়োজন ¯^চক্ষে দেখে সবাই মতামত দিতে পারবেন…মেলায় আরো কি কি থাকছে আপডেট পরে জানানো হবে… আগে মেলায় আড্ডা জমিয়ে নিই………….