ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

ইসলামিক রিপাবলিক অব বাংলাদেশ । কেমন হবে আমাদের এই দেশটার নাম যদি এক বছর পর এরকম হয় ? কেমন একটা পবিত্র পবিত্র ভাব এসে যাবে চারপাশে তাইনা ? চারদিক থেকে সবসময় আতর আর আগরবাতির ঘ্রাণে মশগুল থাকবে বাতাস , আহ আহ -হা -আ-হা । কী চমত্কার । পুরুষদের পোশাক হবে যুব্বা -সালোয়ার , মাথায় পগড়ি। মহিলারা সব কালো বুরখায় আবৃত,একটি কালো চাদর মাথা এবং একটি চোখ সহ মুখ ঢেকে রাখবে। মহিলারা দুই চোখে দেখতে পারবেনা , ইসলামী দেশতো তাই এক চোখে দেখতে হবে । অথবা আফগানিস্তানের মহিলাদের মত একটা কোলবালিশের কভারের মত বিশেষ ধরনের বোরখা মাথার উপর থেকে ছেড়ে দিবে শুধু চোখের কাছে দুটো গোল ছিদ্র থাকবে ।

পাগরী ,যুব্বা , সালোয়ার পরিহিত মোল্লারা বেত হাতে রাস্তায় টহল দিবে , কেউ কোনও অনৈসলামিক কাজ করে কিনা দেখার জন্য । কেউ নিজের সেক্রেটারিকে নিয়ে উমরাহ করতে যায় কিনা ইত্যাদি দেখভাল করবে !

বোনাস হিসাবে সপ্তাহে দুই দিন আত্মঘাতী ইসলামী বোমা এদিক সেদিক ফাটবে । ২০/ ৫০ জন মানুষের ইসলামী মৃত্যু হবে ।আলামত কি তাই দেখা যাচ্ছেনা? আমরা কী এরকম আশা করতে পারিনা ? আমাদের এই দেশটা একদিন পাকিস্তানের মত ইসলামী প্রজাতন্ত্র হবে এ উদ্দেশ্যে বিশিষ্ট ইসলামী পীর কামেল , ওলামা মশাএখ এবং জামাতি শিবিড়ি গোষ্ঠী প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছে । এদের পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন বিশিষ্ট ইসলামী সাধক খালেদা জিয়া ,যার স্বামী বাংলাদেশে সর্বপ্রথম বিসমিল্লাহ নাজেলকারি জেনারেল !! অতএব ইসলামী প্রজাতন্ত্র বাংলাদেশ নাকি বাংলাস্তান হওয়া খুব দূরে নয় । আসুন আমরা খুশিতে চাঁদের দিকে তাকিয়ে থাকি আর ধর্ষকের ভয়ে চাঁদের বুড়িকে লাফ দিয়ে পড়ে আত্মরক্ষা(?) করতে দেখি !!

পুনরায় লেজের কুকুর নাড়ানো ………………?

হ্যাঁ ,সাকা চৌধুরীর সেই বিখ্যাত উক্তি সত্যে প্রমাণ করলেন খালেদা । সাকার উপলব্ধি ছিল এরকম যে , আগে জানতাম কুকুরে লেজ নাড়ায় …এখনতো দেখি লেজেই কুকুর নাড়ায় ! সাকার এ মন্তব্যটি জামাত বিএনপির বর্তমান সম্পর্কের সমার্থক নি:সন্দেহে। এপর্যন্ত জানা ছিল বিএনপির কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচী ঘোষিত হবার পরদিন জামাত নিজেদের প্যাডে একই রকম কর্মসূচী দিয়ে ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চার মত লাফ দিত । কিন্তু এখন দিন পাল্টেছে। বিএনপির চ্যায়ারপার্সন খালেদা জিয়া সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে একাধারে এখন জামাতের ভারযুক্ত আমিরের পদটিও অলংকৃত করেছেন । জামাতের ঘোষিত দুইদিনে সন্তুষ্ট হতে না পেরে তিনদিন হরতালের ঘোষণা দিয়ে দেন । আগে থেকে লিখে রাখা বক্তব্য ….জামাতের দুই দিনের হরতালের পরদিন বিএনপির একদিনের হরতাল বলে দিয়ে গট গট করে চলে গেলেন । হলতো লেজের কুকুর নাড়ানো?

স্বাধীনতার ৪২ বছর পর খালেদা জিয়া সেদিন গণহত্যা শব্দটি উচ্চারণ করলেন , তবে ৭১ এর গণহত্যার কথা তিনি বলেননি । কোত্থেকে বলবেন ? ৭১ এ যে পাকিস্তানী হায়েনারা গণহত্যা চালিয়েছিল খালেদা জিয়া তো যুদ্ধের নয়টি মাস ওদের দুধ কলার আতিথেয়তায় ভেসেছিলেন ঢাকা ক্যাণ্ট এর মহলে । নয়মাসের হত্যাযজ্ঞকে তিনি একবারের জন্যও গণহত্যা বলেননি । তবে তিনি বলেছেন , আমরা কী এজন্য মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি ? পাঠক আমার প্রশ্ন …..উনি কবে কিভাবে মুক্তিযুদ্ধ করলেন ? আর বর্তমান কার্যকলাপে কি প্রমাণ হয় যে তিনি মুক্তি যোদ্ধা!!??
চলবে………….+