ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 
blog image

পহেলা বৈশাখ হোক অথবা ২৯শে অগ্রহায়নই হোক, নারী যে পোষাকই পরুক না কেন, আমাদের কারো কারো চোখে সেক্সি লাগে । এখন যদি পণ্ডিতি না করে সহজ বাংলায় চিন্তা করি এভাবে, যে পোষাকটি পড়লে আমাদের কন্যা-মাতাভগ্নি-স্ত্রীদের দিকে নেক নজর পড়লে আমাদের অনেকের ইসলামি চেতনার ইন্দ্রীয় সমূহে সুরসুরি লাগে, সে পোষাকটিই খুলে আলাদা কোথাও ভাঁজ করে বা ভাঁজ ছাড়া অবস্থায় একটা টেবিলের উপর রেখে ধর্মীয় চেতনার চোখ দিয়ে তাকিয়ে থাকলে সে পোষাকটি তখন তাদের হৃদয়ে যৌন সুড়সুড়ি জাগাতে পারবে কিনা। আমার তো মনে হয় এক্ষেত্রে ওদের যদি ইউনানি দাওয়াখানা থেকে ১ কেজি পরিমাণ ‘হাব্বে খোরমা সালসাই মর্দামি’ খাওয়ানোও হয় তবুও সুড়সুড়ি জাগানো যাবে না। এতে কি এতুটুকু বলা যায় না যে নারীর পোষাক এখানে দূষণীয় নয়, দোষ আমাদের চোখের, দোষ আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির। দোষ রিপুর।

তাই যারা বলে থাকেন, নারীর ‘এরকম সেরকম’ পোষাক পরার কারনেই নারী লাঞ্ছনার শিকার হয় , তাদের উদ্দেশ্যেই এই ছবিটা । উপরের ছবিতে আরব দেশীয় বাইক আরোহী যুবকদের কুৎসিত দৃষ্টি পড়েছে পরিপূর্ণ একজন পর্দানশীন নারীর প্রতি ।

ঠিক নিচের ছবিতেই দেখা যাচ্ছে একজন নারী মডার্ন পোষাক পড়ে কয়েকজন পুরুষের মাঝ দিয়ে গট গট করে হেঁটে যাচ্ছে, সবাই ভ্রুক্ষেপহীন। দৃষ্টিভঙ্গির তফাৎটি ছবিটিতে ফুটে উঠেছে । নিচের ছবিটিতে মডার্ন পোষাকটি বাছাই করা হয়েছে , গোড়ালি পর্যন্ত প্যান্ট , ইচ্ছা করেই মিনিস্কার্ট পরা কোন নারীর ছবি বাছাই করা হয়নি, কারণ এতে সুড়সুড়ির  কারণে কারো কারো অকাল –পাত হবার ভয় থেকে যায় ।

ছবি – ফেইসবুক থেকে সংগ্রহ ।