ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

আজ সকালে পত্রিকা খুলেই দেখলাম মার্কিন রাষ্ট্রদূতের ধমক| পত্রিকাটির ভিতরের পাতায় গিয়ে দেখলাম হিলারি চিঠি পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীকে , রাষ্ট্রদূত মজিনা বুঝিয়ে দিয়েছেন তৈরি পোশাক মার্কিন দেশে বেচা বিক্রি বন্ধ হয়ে যাবে |ওদিকে হিলারি গ্রামীণ ব্যাংকের চিন্তায় নাওয়া খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন। রাষ্ট্রদূতের কথাবার্তায় বোঝা যায় , গ্রামীণ ব্যাংক আর ড:ইউনুস সমস্যায় পড়লে পুরো বাংলাদেশ সমস্যায় পড়বে । ঠিক একদিন আগেই কিছু টিভি চ্যানেল এবং পত্রিকায় ইউনুসের বিবৃতি প্রকাশের বাহুল্য এবং মজিনা হিলারির ধমক একসূত্রে গাঁথা বলে ধারনা করা যায় |কিছুদিন আগে হিলারির বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশকে কম অপমান অপদস্থ করেননি হিলারি , এই একজন ইউনুসের জন্য।

ড:ইউনুস আর কত বছর কর্মক্ষম থাকবেন? ৫/১০/২০ বছর? মার্কিনিদের এজেন্ট হিসাবে আপনার শারীরিক মানসিক ফিটনেস আর কতদিন থাকবে ? আপনি কী ভাবতে পারেন একটা গ্রামীণ ব্যাংক আর একটা দেশের অর্থনীতিকে বাঁচিয়ে রাখা পোশাক শিল্পের অবস্থান কতটা পার্থক্য করে দুইয়ের মধ্যে? আপনি এক্ষেত্রে শুধুই নিজেকে একজন ব্যাংকার হিসেবে ভাবুন , এবার বলুন একজন ব্যাংকারের চাকুরীর জন্য বিশ্বের ক্ষমতাধর একটি দেশ যখন আমাদের দেশকে হুমকি ধমকি দেয়, আমাদের অর্থনীতির চাকা অচল করে দেওয়ার কথা বলে , আমাদের বুঝতে বাকি থাকেনা আপনি ওদের কত বড় স্বার্থের দেখভাল করেন। এক্ষেত্রে অপর দিকটি হচ্ছে আপনি আমাদের দেশের কোনও স্বার্থ তো রক্ষা করেন ই না , বরং আপনি আমাদের দেশের অর্থনীতির প্রতি একজন বড় হুমকি হয়ে উঠেছেন ।

ড: ইউনুস আপনি ভেবে দেখেন তো একবার সত্যি সত্যি যদি হিলারি মজিনাদের হুমকি বাস্তবতা পেয়ে যায় আর মানুষ বুঝে যায় যে এই বিপর্যয়ের হোতা আপনি, ক্রীড়ানক আপনি, চিন্তা করতে পারেন আপনার প্রতি মানুষের ধারনা কোথায় নেমে আসবে? কেন আপনি এরকম খেলা এখনই বন্ধ করার কথা ভাবেন না ? এই পোশাক শিল্প বাংলাদেশের অর্থনীতির কতটা সহায়ক তা আপনার চেয়ে ভাল কে জানবে? একটা ব্যাংক, একটা চাকুরী অন্যদিকে ১৬ কোটি মানুষের দেশের মুখ থুবড়ে পরা অচল অর্থনীতি, দুটোকে এক করে দেখুন না একবার, কোনটা প্রাধান্য পায় ।

নোবেল প্রাইজ পাবার পর আপনার খেয়াল চেপেছিলো, রাষ্ট্রনায়ক হওয়ার যোগ্যতা হয়ে গেল | অচিরেই ভুল প্রমাণিত হয়েছে। এই মুহূর্তে আপনি যে অবস্থানে আছেন এটা যে দেশ বিরোধী অবস্থান তাও বুঝবেন একসময় ,কিন্তু দেরি হয়ে যাবে |

ড:ইউনুস শেষ কথাটা বলে শেষ করি , হিলারি মজিনাদের পূর্বসূরি নিক্সন-কিসিনজার গং সাত কোটি মানুষের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল, ফলাফল জানেন অবশ্যই| মজিনা হিলারীদের অপমানের জবাব ১৬ কোটি মানুষ দিতে পারবে , হয়ত অনেক বেশি কস্ট হবে। আপনি যখন থাকবেন না গ্রামীণ ব্যাংক কী বন্ধ হয়ে যাবে? ব্যাংক টি এত দুর্বল ভিত্তির অপর দাড় করিয়েছেন যে একজন মানুষের অবর্তমানে ধসে পড়বে ? শুধু এটুকু ভাবুন দেশ চিরজীবী , ব্যাক্তি চিরজীবী নয়| ড:ইউনুস দীর্ঘজীবী হোন, আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করি|

ভোগ নয় ত্যাগই মহান|