ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

পদার্থ বিজ্ঞানে শক্তির নিত্যতার একটি সুত্র পড়েছিলাম , যে সূত্রটি আবিষ্কার করেছিলেন মহাবিজ্ঞানি নিউটন। সূত্রটি হচ্ছে ,” শক্তির কোন বিনাশ নেই, শক্তি অবিনশ্বর ।শক্তির শুধু রুপান্তর আছে ।” অনেকদিন আগের পড়া । ভুল হলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন আশা করি।একটু যদি গভীরভাবে চিন্তা করি, তাহলে আমরা দেখতে পাবো আমাদের মানুষের সাথেও এই সূত্রটির মিল আছে।

আমি যদি বলি মানুষও অবিনশ্বর, মানুষের কোন বিনাশ নেই তাহলে অনেকই আমাকে পাগল ভাবতে পারেন। কিন্তু আমি ভেবে দেখেছি , সত্যি মানুষের কোন বিনাশ নেই শুধু রুপান্তর আছে মাত্র।
তাহলে একটু ব্যাখ্যা করি। মানুষ একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য পৃথিবীতে জন্মগ্রহন করে। মহান আল্লাহপাক বলেছেন মানুষের প্রত্যেক কৃতকর্মের হিসেব নেওয়া হবে । অর্থাৎ মানুষের মৃত্যুর পর থেকেই কিন্তু সেই হিসেব নেওয়া শুরু হয়ে যায়। এভাবেই কিয়ামতের পর শেষ বিচার , এবং তারপরেই মানুষ চলে যাবে যার যার দুনিয়াতে করা কৃতকর্মের ঠিকানায় এবং সেই ঠিকানা হবে অনন্তকালের। তাহলেই দেখুন মানুষ কিন্তু থাকছেই শুধু পরিবর্তন হচ্ছে জগত । আমরা দেহ এবং আত্মা এই দুইয়ের সংমিশ্রণে তৈরি ।মৃত্যু হচ্ছে একটি অবস্থা, যার মাধ্যমে মানুষ এক জগত থেকে আরেকটি জগতে প্রবেশ করে। পৃথিবীতে আমাদের দেহ এবং আত্মা দুটোই জীবিত থাকে। আর মৃত্যুর পর শুধু আত্মা জীবিত থাকে। আবার কিয়ামতের পরে দেহ এবং আত্মা দুটোই আবার অনন্তকাল জীবিত থাকবে।তাহলে কিন্তু প্রমানিত হোল যে মানুষও অবিনশ্বর এবং মানুষের জীবনের শুধু রুপান্তর আছে।

এখন আসা যাক মূল কথায়। মানুষের অবিনশ্বরতা প্রমাণ করাটা আমার আজকের লেখার উদ্দেশও নয়। বিগত কয়েকদিনে এবং বছর খানেক আগে আমাদের দেশে সরকার বিরোধী আন্দলনে পেট্রোল বোমার আগুনে জীবন্ত পুড়ে মৃত্যু বরণ করা হতভাগ্য মানুষদের কথা বলতেই আমার এই লেখা। আমি সেই সমস্ত মানুষদের আত্মার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।সেই সঙ্গে দোয়া করছি যেন মহান আল্লাহপাক তাদের সবাইকে বেহেস্ত নসীব করেন। উপরল্লেখিত মানুষের অবিনশ্বরতার ব্যাখ্যা যদি কেউ বিশ্বাস করেন। তাহলে এটা অবশ্যই বিশ্বাস করবেন যে , সেই হতভাগ্য মানুষগুলোর বিদেহী আত্মারা বেঁচে আছে। সেই অতৃপ্ত আত্মারা হয়তো আমাদেরই আশেপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে আর চিৎকার করে বলছে ” কি অপরাধ ছিল আমাদের? আমরাতো রাজনীতির বা ক্ষমতার ভাগীদার ছিলাম না। তবে আমাদের কেন পুড়িয়ে মারা হোল ?”
আমি পুড়ে কয়লা হয়ে যাওয়া মানুষগুলোর আত্মাদের পক্ষ হয়ে একটা মিছিল করতে চাই। যেটা হবে একটা প্রতীকী আত্মার একটা মিছিল। যার মাধ্যমে আমি সেই বিদেহী আত্মাগুলোর আর্তনাদ আমাদের নেতা নেত্রীদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই। হয়তো আমাদের প্রতীকী আত্মার মিছিলে ঐ সমস্ত বিদেহী আত্মারাও শরিক হবেন। যদি আপনারা কেউ আমার প্রতীকী আত্মার মিছিলে অংশ নিতে চান। তবে অনুগ্রহ করে এই ব্লগে আগ্রহ জানাবেন।
আমি আপনাদের সকলের কাছে পেট্রোল বোমার আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাওয়া মানুষগুলোর আত্মাদের পক্ষ থেকে আমার উদাত্ত আহ্বান –
“চলো যাই আত্মার মিছিলে।”