ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ব্লগের একজন ব্লগার হিসেবে ২০১১ সালে আমার কাছে সবচেয়ে আকস্মিক ও আনন্দের বিষয় ছিল নগর নাব্য-২০১২ প্রকাশের সংবাদটি। উদ্যামী-উদ্যোগী ব্লগার ম. সাহিদ যখন উঠে-পরে লেগেছিলেন তখনই মনে হয়েছিল ব্লগ হিসেবে নতুন হলেও বিডিনিউজ ব্লগ পিছিয়ে থাকবে না। ম. সাহিদের উদ্যোগের প্রতি ব্লগ টিমের সহযোগিতা ও ব্লগারদের অংশগ্রহণ শেষতক প্রমাণ করে দিয়েছে, বিডিনিউজ ব্লগ পিছিয়ে থাকেনি, ভার্চুয়াল ও বাস্তব জগতে এই ব্লগ এগিয়ে যাচ্ছে সঠিক গতিতে। সময়ের সমানুপাতে এ যাত্রার গতি বাড়বে সন্দেহ নেই, তবে আজ পর্যন্ত এতে কোন ছন্দ পতন হয়েছে বলে মনেকরি না। একটি কথা প্রচলিত আছে, ‘গভীর জল ধীরগামী’। বিডিনিউজ ব্লগের ক্ষেত্রে কথাটি শতভাগ সত্য হোক আমি এটাই কামনা করি আর তাই বিশ্বাস করি ব্লগটি এগিয়ে যাবে সৎ, সাহসী ও যোগ্য ব্লগারদের সাথে নিয়ে কারণ এই ব্লগাররাই ব্লগের গভীরতা, ব্লগের গতি।

পুরনো আনন্দ আবার নতুন করে অনুভব করছি নগর নাব্য ২০১৩ প্রকাশের উদ্যোগ দেখে। উদ্যোক্তা, সহযোগী আর অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে এবারো সেই অকৃত্রিম আন্তরিকতা। ম. সাহিদ ইতোমধ্যেই তৃতীয় আপডেট প্রকাশ করে ফেলেছেন নগর নাব্য-২০১৩ নিয়ে। এবারো আমি নিশ্চিত, সঠিক গতিতে, সঠিক সময়ে প্রকাশিত হবে বিডিনিউজ ব্লগের গর্বের প্রতীক ব্লগ সংকলনটি। নগর নাব্য-২০১২ নিয়ে এর আগে আমি একটি পোস্ট লিখেছিলাম এবং কোন একটি পোস্টে ম. সাহিদকে বলেছিলাম আরো একটি পোস্ট দেবার চেষ্টা করবো। সে কারণেই আজকের এই পোস্টটির অবতারণা। আর এই পোস্টে আমি আরো একটি কথা উল্লেখ করা প্রয়োজন মনে করছি, প্রথম নগর নাব্য নিয়ে যত সংখ্যক রিভিউ পোস্ট আসবে বলে আমি ভেবেছিলাম তত সংখ্যক পোস্ট আমার চোখে পড়েনি। ব্যাপারটা আমার কাছে মনে হয়েছে সংসদের কোরাম সংকটের মত। শুধুমাত্র মন্ত্রীরা উপস্থিত হলেই যেখানে কোরাম পূর্ণ হয় সেখানে কোরাম সংকটের কারণে সংসদ চালানোই মুশকিল হয়ে যায়। প্রথম নগর নাব্যে ২৭ জন ব্লগারের লেখা ছাপা হয়েছিল সে হিসেবে অন্তত এক তৃতীয়াংশ ব্লগার যদি রিভিউ দিতেন তবে তার সংখ্যা হতো ৯টি। অথচ দুঃখজনকভাবে তা হয়নি। এটাকে আমি অনিহাই বলবো। এ বলার পেছনে কারণও আছে। নাস্তিক-আস্তিক ইস্যুতে একেকটি পোস্টে যে আগ্রহ বলে মন্তব্যের ঝড় বয়ে যায় সেভাবে বা সেই আগ্রহ নিয়ে তেমন কাউকে রিভিউ পোস্ট দিতে দেখা যায়নি (অন্তত আমার চোখে পড়েনি)। তবে আশা করছি, দ্বিতীয় নগর নাব্যের বেলায় এই হতাশার চিত্রটি আমাদের দেখতে হবে না।

এখন আসা যাক আমার কয়েকটি ছোট-খাটো মতামতের দিকে। আমার সাধারণ চোখে প্রথম নগর নাব্য দেখার পর মনে হয়েছে নিচের কয়েকটি বিষয়ে চাইলে সম্পাদকমন্ডলী দৃষ্টি দিতে পারেন:

১) সংকলনের প্রচ্ছদে এবং ভেতরের নগর নাব্য লেখা প্রথম পাতাতেই বিডিনিউজ২৪.কম ব্লগের অফিসিয়াল লোগো যথার্থ মাপে সংযুক্ত করা যেতে পারে এবং লোগোর নিচে ব্লগ হোমপেজের লিংকও মুদ্রিত করা যেতে পারে।

২) প্রকাশিত লেখাগুলোর মূল ব্লগ পোস্টের শিরোণাম প্রয়োজন হলে কিঞ্চিত পরিবর্তন করার অধিকার সম্পাদকমন্ডলীকে দেয়া যেতে পারে। এই পরিবর্তন হতে হবে শুধুমাত্র শুধুমাত্র মুদ্রিত সংকলনের সৌন্দর্যের স্বার্থে। কারণ ব্লগে অনেক সময় খুব বেশি দীর্ঘ শিরোণাম দেখা যায় যা মুদ্রিত গন্থের জন্য সৌন্দর্যহানীকর।

৩) প্রকাশিত লেখাগুলোর শিরোণামের উপর বা যে কোন সুবিধাজনক স্থানে সংশ্লিষ্ট ব্লগারের প্রোফাইল পিকচার যথার্থ মাপে সংযুক্ত করা যেতে পারে। তাছাড়া পোস্টটি কতবার পঠিত হয়েছে তাও সংযুক্ত করা যেতে পারে।

৪) প্রতিটি পোস্টের সাথে সংযুক্ত নির্বাচিত মন্তব্যসমুহ অংশে মন্তব্যকারী ব্লগারের নাম বোল্ড করে এবং নামের নিচে তার ব্লগ লিংক যুক্ত করা যেতে পারে।

৫) নিবন্ধিত ব্লগার ব্যতীত কারো মন্তব্য ছাপা হলে তার নামের সাথে ‘অতিথি’ শব্দটি বা সুবিধাজনক অন্য কোন শব্দ যুক্ত করা যেতে পারে।

৬) মূল ব্লগ পোস্টে অতিথি মন্তব্যকারীর নাম ইংরেজিতে থাকলে সংকলনে তা বাংলায় রূপান্তর করে ছাপা যেতে পারে। এতে প্রকাশনার সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করি।

৭) অজ্ঞাতনামা বা ১১০১১ ধর্মী নামধারী কারো মন্তব্য একেবারেই প্রকাশ করা উচিত নয় বলে মনে করি। প্রথম নগর নাব্যের ১৭৪ পৃষ্ঠায় এ নামের একজন মন্তব্যকারী রয়েছে।

৮) প্রকাশিত লেখাগুলোর ফন্ট সাইজ একটু ছোট করলে পড়তে খুব একটা অসুবিধা হবে বলে মনে হয় না। তাছাড়া এতে অন্তত দুটি লেখা বেশি ছাপা যাবে বলে মনে করি।

৯) প্রকাশিত লেখাগুলোর মধ্যে ব্যবহৃত ছবিগুলোর ছাপার মানের দিকে আরো বেশি দৃষ্টি দিতে হবে এবং এ ব্যাপারে প্রকাশকের সহযোগীতা কাম্য। তাছাড়া প্রতিটি ছবির নিচে ক্যাপশন থাকা উচিত। এক্ষেত্রে যাদের লেখা নির্বাচিত হবে তাদের সাথে সম্পাদক মন্ডলী যোগাযোগ করে সহযোগীতা নিতে পারেন।

১০) মূল লেখায় কোন পরিসংখ্যান ছক বা মানচিত্র থাকলে সেগুলোর উৎস উল্লেখ করা যেতে পারে। এক্ষেত্রেও নির্বাচিত ব্লগারদের সহযোগীতা নেওয়া যেতে পারে।

১১) নগর নাব্য-২০১৩ তে নতুন অধ্যায় হিসেবে ‘ছবিব্লগ’ থাকতে পারে। তবে এক্ষেত্রে ছাপার মান ও ক্যাপশনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

১২) দ্বিতীয় নগর নাব্যে প্রথম নগর নাব্য নিয়ে প্রকাশিত অন্তত দুটি রিভিউ পোস্ট প্রকাশ করা যেতে পারে। এতে রিভিউ পোস্ট দেবার প্রতি ব্লগারদের আগ্রহ বাড়বে বলে মনে করি। এ ধরণের পোস্ট বাছাই করার দায়িত্ব শুধুমাত্র সম্পাদকমন্ডলীর হাতে থাকবে।

১৩) ২০১২ সালে আমরা দু-একজন প্রিয় ব্লগারকে হারিয়েছি। নগর নাব্য-২০১৩ তে তাদের নাম, মৃত্যু তারিখ, ব্লগ লিংক, প্রোফাইল পিকচার সংযুক্ত করা যেতে পারে। আর সম্ভব হলে তাদের যেকোন একটি লেখাও ছাপা যেতে পারে।

১৪) বিডিনিউজ ব্লগে ২০১২ সালের সর্বাধিক আলোচিত ও সর্বাধিক পঠিত অন্তত ১০টি ব্লগের তালিকা ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে মন্তব্য সংখ্যা ও পঠন সংখ্যা উল্লেখ করে একটি তালিকা প্রকাশ করা যেতে পারে। এ কাজটি হয়তো ব্লগপোষককেই করতে হবে।

১৫) ২০১২ সালে বিডিনিউজ২৪.কম ব্লগটিম ১০ জন সেরা ব্লগার নির্বাচিত করেছিলো। ব্লগ লিংক ও পো. পিক সহ তাদের নামের তালিকা সংযুক্ত করা যেতে পারে।

আমার এই প্রস্তাবগুলো একান্তই আমার নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেওয়া। এগুলো বিবেচনা করার দায়িত্ব উদ্যোক্তা, ব্লগটিম ও সংকলন সম্পাদকমন্ডলীর।