ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

অবশেষে ঢাকাভঙ্গ কার্যকর হলো। স্থানীয় সরকার আইন (২০১১) পাশের মধ্য দিয়ে ঢাকা এখন বিভক্ত নগরী। একটি সিটি কর্পোরেশনের এই ব্যবচ্ছেদ শুধু একটি নগরীকেই নয় ক্ষত-বিক্ষত করেছে দেশবাসীর মনকেও। একটি রাষ্ট্রের শাসক শ্রেণি কতটা উদাসিন ও সংকীর্ণ মানসিকতার হলে এ রকম ঘটনা ঘটতে পারে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। ক্ষমতার সুফলভোগী অল্প কিছু লোক ছাড়া এমন কেউ নেই যারা এই ঢাকাভঙ্গকে সমর্থন করেছে। সুশীল সমাজ, তরুণ নাগরিক সমাজ ও সাধারণ জনগণ প্রত্যেকেই প্রকাশ্যে বিরোধীতা করেছে সরকারের এমন অবাস্তব ও সংকীর্ণ সিদ্ধান্তের। কিন্তু দুঃখের বিষয় আমাদের সরকারের সব কর্তাব্যক্তিই বধির কিংবা বধিরের মত আচরণ করছে। জনতার দাবি, সচেতন নাগরিকদের প্রতিবাদ তাদের কর্ণকুহরে পৌঁছুতেই পারেনি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ শক্তি হিসেবে বর্তমান সরকার নাগরিকদের বিশাল অংশের যে সমর্থন পেয়েছিল তা দিন দিন কেমন যেন ফিকে হয়ে আসছে। সরকারের প্রতিটি কাজেই এখন তাদের প্রতিবাদ ও অসন্তোষ চোখে পড়ছে। অথচ সরকার নির্বিকার, তথৈবচ।

ঢাকা যেহেতু এখন থেকে একটি বিভক্ত নগরী তাই অবিভক্ত ঢাকার শেষ মেয়র হিসেবে ইতিহাসে নাম লেখালেন সাদেক হোসেন খোকা। বিদায় বেলায় তিনি অপ্রতিরোধ্য একটি মন্তব্য বাজারে ছেড়ে দিয়ে গেছেন। তিনি বলেছেন, শুধু মাত্র তার জনপ্রিয়তার ভয়েই সরকার ঢাকাকে দুই ভাগ করেছে। এই মন্তব্যের প্রতিবাদ কেউ করেনি। আর করলেও অধিকাংশ মানুষই তার এই মন্তব্যকে বিশ্বাস করেছে। মানুষ বিশ্বাস করেছে যে ঢাকাকে ভাগ করে তার এক ভাগের দখল নিতে সরকার এখন মরিয়া হয়ে উঠেছে। শুধু সাধারণ জনগণই নয়, স্থানীয় পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেও লক্ষ্য করা গেছে অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি। নিজ সমর্থিত সরকারের দেয়া সেবার মান বৃদ্ধির যুক্তিকেও তারা তুলে ধরার মানসিক শক্তি পাচ্ছেন না।

বঙ্গভঙ্গের মত ঢাকাভঙ্গও যে এক সময় রদ হবে তা সুস্পষ্ট। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি ও সে দলেরই সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা ইতোমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছেন, ক্ষমতায় এলে দুই ঢাকাকে আবার একীভুত করা হবে। আমরা নিশ্চিত বিএনপি ক্ষমতায় এলে তাই হবে। তবে সরকার কেন নির্বিকার?

একটি উন্নয়নকামী রাষ্ট্রের সরকারের কাছ থেকে এমন হাস্যকর ও হালকা সিদ্ধান্ত মোটেই প্রত্যাশিত নয়। সেবার মান বৃদ্ধি ও উন্নয়নকে বেগবান করার যে যুক্তি সরকার জনতার সামনে হাজির করেছে তা বিশ্বাস যোগ্যতা পায়নি। কারণ আমাদের নৈতিক অবক্ষয়। জনগণকে যারা সেবা দেবে তারা যদি প্রতিশ্র“তিশীল না হয় তবে ঢাকাকে দুই ভাগ কেন ৯০ ভাগ করলেও অবস্থার কোন উন্নতি হবেনা। ঢাকাবাসীকে আগের মতই মশার কামড় খেতে হবে, অল্প বৃষ্টিতেই রাজপথে নৌকা চালাতে হবে, পথ চলতে গিয়ে ম্যানহোলে পড়তে হবে।

কিন্তু রাজধানী ঢাকা ভাগ হয়েছে এটাই এখন সত্য। সরকার এ সিদ্ধান্ত থেকে আর উল্টোপথে হাটবে না বলেই মনে হয়। এমন বাস্তবতায় একটি প্রশ্ন সামনে এসে দাঁড়ায়। অবিভক্ত ঢাকার আকাঙ্ক্ষা যাদের মনে রয়ে গেল তারা কি অপেক্ষা করবে বিএনপি সরকারের জন্য?