ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা


ছবি: বিডি নিউজ

দুপুর আড়াইটা থেকে রাত প্রায় নয়টা পর্যন্ত এক লজ্জাজনক নিরবাতা ছিল গ্যালারী ও সমগ্র বাংলাদেশে। এক অনিবার্য পরাজয়ের আশঙ্কায় প্রকাশ পাচ্ছিল মানুষের হতাশা। তাদের প্রিয় টাইগাররা যখন আয়ারল্যান্ডের মত একটি ছোট দলের বিরুদ্ধে মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতেই পারছিলনা তখন লজ্জা ছাড়া আর কোন অনুভূতিই হয়তো জেগে উঠেনি। এক সময় আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল, বাংলাদেশ হয়তো ১৫০ এর বেশি রান করার সুযোগই পাবেনা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ২০০ অতিক্রম করায় জয়ের আকাঙ্খাটা একেবারে চুপসে যেতে পারেনি। আর সেই মুমূর্ষু আকাঙ্খা শেষ পর্যন্ত জয় নামক বাস্তবতায় রূপ নিয়েছে। তাই অভিনন্দন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে

আজকের এই জয় গর্বের হতে পারতো, হয়নি। খেলা শুরুর খানিক বাদেই প্রচণ্ড প্রতাপে আয়ারল্যান্ড বাংলাদেশের সাথে টম এন্ড জেরি’র শো শুরু করে দিল। ক্ষুদে আয়রিশ দলের কাছে উইকেটে পরাজয় মানতে শুরু করলো বাংলাদেশ। আয়রিশদের এমন প্রতাপ সত্যিই অবাক করেছে বাংলাদেশ সমর্থকদের। তাই এই বীরত্বপূর্ণ লড়াইয়ের জন্য আয়ারল্যান্ডকেও অভিনন্দন। কারণ তারা একটি সহজ জয়কে ইস্পাত কঠিন করতে সক্ষম হয়েছে।

আজকের এই খেলা থেকে বাংলাদেশকে আরো শিক্ষা নিতে হবে। প্রতিপক্ষকে দুর্বল ভাবা যে সবচেয়ে বড় বোকামী এই কথা যেন তারা পরবর্তী খেলাগুলোতেও স্মরণ রাখে। একটি টক শোতে জনাব আসাফৌদ্দৌলাকে বলতে শুনেছিলাম, প্রকৃত গুণীরা কথার চেয়ে কাজটাই বেশি করে। নীরবে কাজ করে যাওয়াই প্রকৃত গুণীর পরিচয়। তিনি সাকিব ও তার দলের সদস্যদের পরামর্শ দিয়েছেন কথা কম বলার জন্য। অতি কথন সাফল্যকেও হালকা করে দেয়। সুতরাং বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন সাকিবের উচিত হবে সংবাদ সম্মেলনের সময় প্রগলভ না হওয়া। কারণ সামনে হোঁচট খেলে এই প্রগলভতাই তার জন্য লজ্জাজনক হবে। তাকে মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশের সম্মান তার ও তার দলের উপর নির্ভর করছে।