ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

সকাল থেকেই মন খুব খারাপ ছিল। মন খারাপ বললে ভুল হবে। শরীর খারাপ এমনটা বলতে হবে। কেননা, ঘুম থেকে উটার পর থেকেই প্রছন্ড মাথা ব্যাথা করতেছে। ঘুম থেকে উটেই বাসার বাইরে টং দোকানে গিয়ে এক কাপ চা এবং একটি সিগারেট খাওয়া আমার বহু পুরানো অভ্যাস।

বরাবরের মত দোকানে গিয়েই বাম হাতে চা এবং ডান হাতে সিগারেট নিলাম। টিভিতে একটি বাংলা সিনামে চলছে। আশ্চর্যের ব্যাপার হল বর্তমানে এই একটিই যায়গা আছে যেখানে বাংলা সিনেমা চলে এবং সবাই হা করে দেখে। তবে আমার এদিকে ভ্রুক্ষেপ নেই। আমার দৃষ্টি সিগারেটের ধোঁয়ার দিকে। ধোঁয়াগুলো আমার মুখ থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে একধরনের অদ্ভুদ আচরন করছে। তারা যেন মুক্ত হচ্ছে! এ যেন মুক্তির স্বাদ! মনে হচ্ছে যেন সিগারেটের তথা আমার মুখ থেকে বের হওয়াটাই যেন তাদের মুক্তি!

কী অদ্ভুদ দৃশ্য, তারা সিগারেটে বন্দী অবস্তায় ছিল, যখনই তার গায়ে আগুন দিয়ে তাকে পান করা শুরু করলাম তখনই সে যেন মুক্তি পেল। আমার ফুসফুসকে জ্বালিয়ে দিয়েই তার মুক্তি? এ কেমন বর্বরতা? তাহলে আমাদের আশেপাশে যে মানুষগুলো চলে যাচ্ছে তারা আমাদেরকে জ্বালিয়ে দিয়ে মুক্তির স্বাদ নিচ্ছে না তো? যদি তাই হয়, তাহলে আমাদেরকে বন্দী করে রাখা মানুষগুলো বা অমানুষগুলোকে জ্বালিয়ে দিয়ে আমরা মুক্তির স্বাদ নিচ্ছি না কেন? না। আর বেশী কিছু চিন্তা করতে পারতেছি না। মাথা ব্যাথা দ্বিগুণ হয়ে গেল। মনে হচ্ছে সিগারেটের এমন মুক্তি আমার হিংসা হচ্ছে। ইশ! আমারও যদি এমন মুক্তি হত। তাহলে না পাওয়া মনের মানুষটির জন্য নিজেকে জ্বালিয়ে দিয়ে নিজেকে মুক্ত করে ফেলতাম!