ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

1448291787

.

জঙ্গিদের আত্মঘাতী হওয়ার মত হীন মানসিকতা দেশের নিরাপত্তার জন্য চরম হুমকি। যারা সমাজের মূল ধারা থেকে আজ বিচ্ছিন্ন, যারা নিজের জীবনকে বোমার সাথে উড়িয়ে দেয় তারা যেকোন সময় আরো বেশি ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে তাতে কোন সন্দেহ নেই। যে কোন সাধারণ মানুষ বোমা শব্দটি শুনলেই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে। পক্ষান্তরে দেশের মধ্যে সংগঠিত হওয়া জঙ্গিরা বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ে নিমিষেই দেশের নানা স্থানে ঘাঁটি গড়ে ফেলছে যেটা খুবই উদ্বেগের ব্যাপার।

যে দেশের মানুষ বাজির শব্দে চমকে উঠে আজ সেই দেশের কিছু মানুষ প্রশিক্ষিত আত্মঘাতী বোমাবাজ জঙ্গিতে পরিণত হচ্ছে। এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে জঙ্গিদের এমন উত্থানের পেছনে বড় অপশক্তি জড়িত রয়েছে। কেননা এযাবৎ কালে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে নিহত জঙ্গিদের অনেকেই উচ্চবিত্ত পরিবারের যাদেরকে এমন খারাপ পথে টেনে আনা কোন সাধারণ শক্তির দ্বারা সম্ভব না। আটক ও নিহত জঙ্গিদের পারিবারিক বা সামাজিক অবস্থা পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে তারা কেউ উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের সদস্য। তরুণ বা বয়স্ক প্রায় সব বয়সের লোক এই জঘন্য পন্থায় ঝুঁকছে তবে তরুণ সংখ্যাটাই বেশি এবং নারীরাও এই জঘন্য পেশায় জড়িয়ে যাচ্ছে।

একটা অপশক্তি সমাজের সকল স্তরের লোকদের জঙ্গিবাদে আকৃষ্ট করার জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। নিশ্চিত ভাবে বলা যায় যে কোন মানসিক ভারসম্যহীন রোগীও আগুনে ঝাঁপ দেওয়ার মত বোকামি করে না। আমারা কখনো দেখি না যে, কোন মানসিক রোগী ভারী যানবাহনের নীচে এলোমেলো ভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে নিহত হচ্ছে। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের জঙ্গিরা মানসিক রোগির থেকেও বেশি বিকারগ্রস্থ হয়ে জঘন্য অপরাধ সংগঠিত করছে। আত্মঘাতী মানসিকতা নিয়ে যে অপতৎপরতা চালাচ্ছে যা তাদের জন্য যতটুকু না অপমানজনক তার থেকে বেশি অপমানজনক তাদের পরিবারের জন্য। এবং সমাজ হচ্ছে কলূষিত, ব্যহত হচ্ছে দেশের স্বাভাবিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং আন্তর্জাতিক মহলে দেশ ও জাতির ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে।

যারা জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে তারা যেমন নিজের জীবনকে বিপন্ন করছে সেই সাথে সাধারণ নাগরিকের স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য চরম হুমকি হয়ে দাঁড়াচ্ছে। সবশেষ যে সব জঙ্গিরা নিহত হচ্ছে তারা নিজ ও নিজের পরিবারকে পৃথিবীর শেষ দিন পর্যন্ত চরম অপমানের মধ্যে ডুবিয়ে দিচ্ছে। আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি সকল স্তরের লোকের জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। অবশ্যই জঙ্গিবাদের শুরুটা খুঁজে বের করে এর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে সকলকে সব সময় তৎপর থাকতে হবে।