ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, মার্চ ২২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- সামরিক আদালতে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার কর্নেল আবু তাহেরের গোপন বিচার অবৈধ বলে রায় দিয়েছে হাইকোর্ট। আদালত বলেছে, তাহের পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের শিকার। আর এর পরিকল্পনাকারী ছিলেন জিয়াউর রহমান।

তাহেরের বিচারের বৈধতা নিয়ে করা রিট আবেদনে বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেনের বেঞ্চ মঙ্গলবার এ রায় দেয়।

তাহেরকে শহীদ মর্যাদা দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আদালত। পাশাপাশি সামরিক আদালতে ওই বিচারে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতেও বলেছে আদালত।

১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর সেনাবাহিনীতে অভ্যূত্থান-পাল্টা অভ্যূত্থান চলে। এরই এক পর্যায়ে জিয়াউর রহমান ক্ষমতা নেওয়ার পর তাহেরসহ ১৭ জনকে সামরিক আদালতে গোপন বিচারের মুখোমুখি করা হয়।

১৯৭৬ সালের ১৭ জুলাই রায়ের পর ২১ জুলাই ভোরে কর্নেল তাহেরের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

ওই বিচারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে কর্নেল তাহেরের ভাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন, তাহেরের স্ত্রী লুৎফা তাহের এবং সামরিক আদালতের বিচারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফ্লাইট সার্জেন্ট আবু ইউসুফ খানের স্ত্রী ফাতেমা ইউসুফ গত ২৩ বছরের অগাস্ট হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন।

তাদের আবেদনের পর হাইকোর্ট সেই গোপন বিচারের নথি তলব করে।

একইসঙ্গে তাহেরের বিচারের জন্য সামরিক আইনের মাধ্যমে জারি করা আদেশ এবং এর আওতায় গোপন বিচার ও ফাঁসি কার্যকর করাকে কেন অসাংবিধানিক ঘোষণা করা হবে না- তা জানাতে সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

রিট আবেদনের শুনানিতে আদালত অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে সুপ্রিম কোর্টের কয়েকজন আইনজীবীর বক্তব্য শোনে।

তারা হলেন- কামাল হোসেন, এম আমীর-উল-ইসলাম, এম জহির, ইফসুফ হোসেন হুমায়ুন, আক্তার ইমাম, এএফএম মেজবাউদ্দিন, আব্দুল মতিন খসরু, জেড আই খান পান্না ও এম আই ফারুকী।

এর আগে হংকং থেকে প্রকাশিত ফার ইস্টার্ন ইকোনোমিক রিভিউ’র তৎকালীন দক্ষিণ এশিয়া প্রতিনিধি সাংবাদিক লরেন্স লিফসুজ, ঢাকার তৎকালীন জেলা প্রশাসক এসএম শওকত আলী, বর্তমান জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. মহিবুল হক আদালতে বক্তব্য দেন।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র থেকে লিখিত বক্তব্য পাঠান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল নূরুল ইসলাম শিশু। তাহেরের সঙ্গে সামরিক আদালতে অভিযুক্ত কয়েকজনও আদালতে বক্তব্য দেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএন/প্রতিনিধি/এমআই/১৩৩৭ ঘ.