ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

টরন্টো, জুন ২৬ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- পদ্মা সেতুতে পরামর্শকের কাজ পেতে ঘুষ দেওয়ার অভিযোগে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ নির্মাণ সংস্থা এসএনসি-লাভালিনের দুই সাবেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আগামী বছর কানাডায় প্রাথমিক শুনানি শুরু হবে।

রমেশ শাহ (৬১) ও মোহাম্মদ ইসমাইল (৪৮) নামের এই দুই সাবেক কর্মকর্তাকে সোমবার কানাডার ওন্টারিওর একটি আদালতে হাজির করার পর বিচারক ২০১৩ সালের ৮-১৯ এপ্রিল প্রাথমিক শুনানির জন্য সময় রাখেন।

রয়্যাল কানাডীয় পুলিশ গত বছর ফেব্রুয়ারিতে সে দেশে এসএনসি-লাভালিন কর্যালয়ের অভিযান চালিয়ে কোম্পানির আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট রমেশ এবং পরিচালক ইসমাইলকে গ্রেপ্তার করে। বিদেশি কর্মকর্তাদের ঘুষ দেওয়া বা সাধার অভিযোগে ‘করাপশন অব ফরেন অফিশিয়াল’ আইনের আওতায় তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলাও করা হয়।

কানডা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বিশ্বব্যাংকের নজরে আনলে তারা পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন স্থগিত করে দেয়। ২৯০ কোটি ডলারের এই প্রকল্পে ১২০ কোটি ডলার দেওয়ার কথা ছিল বিশ্ব ব্যাংকের। অর্থায়ন নিয়ে বিশ্বব্যাংকের এই সিদ্ধান্তের ফলে এই প্রকল্পের অপর সহযোগী এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) অর্থ দেওয়ার বিষয়টিও আটকে যায়।

অর্থায়ন জটিলতায় প্রকল্প ঝুলে যাওযার পর দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তদন্তের উদ্যোগ নেয় দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। এক দফা তদন্তের পর গত ফেব্রুয়ারি দুদক জানায়, মূল সেতু নির্মাণে প্রাকযোগ্য প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে কোনো রকম দুর্নীতি হয়নি। তবে পরামর্শক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে তদন্ত এখনও চলছে।

এই তদন্তের অংশ হিসাবে ইতোমধ্যে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেন, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী এবং জাতীয় সংসদের হুইপ নূর আলম চৌধুরী লিটনের ভাই নিক্সন চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুদক।

গত ১৮ জুন নিক্সন চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদের পর দুদক চেয়ারম্যান গোলাম রহমান সাংবাদিকদের বলেন, পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়মের বিষয়ে বিশ্বব্যাংক কিছু তথ্য-উপাত্ত দুদককে দিয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে জোরেসোরে অনুসন্ধান চলছে।

দুদককে আরো কিছু তথ্য দিতে এবং কানাডায় তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে জানিয়ে সহযোগিতা করতে রয়্যাল কানাডীয় পুলিশ একটি প্রতিনিধি দল সোমবার ঢাকায় পৌঁছেছে। তারা ইতোমধ্যে দুদক কর্মকর্তাদের সঙ্গে একটি বৈঠকও করেছেন।

দুদকের একজন কর্মকর্তা জানান, ভারতীয় বংশোদ্ভূত রমেশের পরামর্শে নিক্সন চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ইসমাঈল। এরপর ইসমাইল বাংলাদেশে নিক্সনকে এসএনসি লাভালিনের পক্ষে কাজ করার প্রস্তাব দেয় বলে কানাডীয় পুলিশ জানিয়েছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৩০০ কোটি টাকা। ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি মূল্যায়ন কমিটি পরামর্শক হিসেবে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের নাম সুপারিশ করেছিল।

এর প্রথমটি ছিল এসএনসি-লাভালিন। অন্যগুলো হলো- যুক্তরাজ্যের প্রতিষ্ঠান হালক্রো গ্রুপ ইউকে, নিউজিল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান একম অ্যান্ড এজেডএল, জাপানের ওরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং যুক্তরাজ্য ও নেদারল্যান্ডসের জয়েন্ট ভেনচার কোম্পানি হাই পয়েন্ট রেলেন্ড।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/জেকে/০৯৪০ ঘ.