ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, জুলাই ০৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- দুর্নীতির অভিযোগে পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য বাংলাদেশের সঙ্গে ঋণচুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ব ব্যাংকের নতুন প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম।

কানাডীয় ওয়েবসাইট গ্লোব অ্যান্ড মেইলের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, সোমবার দায়িত্ব নেওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতে জিম কিম এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, “আমি মনে করি, ওই সিদ্ধান্ত ঠিক আছে।”

“বাংলাদেশের দরিদ্র মানুষের মঙ্গলের বিষয়ে আমরা খুবই সজাগ। কিন্তু আমাদের এটাও মনে রাখতে হবে যে বিশ্ব ব্যাংক কখনোই দুর্নীতিকে প্রশয় দেয় না”, বলেন তিনি।

জিম কিমের পূর্বসূরী রবার্ট জেলিকের শেষ কর্মদিবসে গত শুক্রবার পদ্মা সেতু প্রকল্পে ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করার কথা জানায় বিশ্ব ব্যাংক।

২৯০ কোটি ডলারের এই প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি ১২০ কোটি ডলার দেওয়ার কথা ছিল। পাশাপাশি এডিবি ৬১ কোটি, জাইকা ৪০ কোটি এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক ১৪ কোটি ডলার ঋণ দেওয়ার জন্য সরকারের সঙ্গে চুক্তি করে।

ঋণ বাতিলের কারণ হিসাবে বিশ্ব ব্যাংকের এক বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশের এই প্রকল্পে শীর্ষ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতির ‘বিশ্বাসযোগ্য’ প্রমাণ মিলেছে। আর এর তদন্তে বাংলাদেশ সরকারের ইতিবাচক সাড়া না মেলায় তারা প্রকল্পে অর্থায়ন বাতিল করছে।

অবশ্য ব্যবসা-বাণিজ্যের খ্যাতনামা সাময়িকী ফোর্বসের চলতি সংখ্যায় এক প্রতিবেদনে বিশ্ব ব্যাংকের ‘ব্যাপক অনিয়মের’ কথা তুলে ধরে বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী এ প্রতিষ্ঠানকে ‘সবচেয়ে অকার্যকর’ একটি হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। দুর্নীতি অনিয়মের জন্য প্রতিষ্ঠানটির সদ্য বিদায়ী প্রধান রবার্ট জেলিকের দিকেও অভিযোগের আঙুল তোলা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

বিশ্ব ব্যাংকের এই সিদ্ধান্তের জন্য সংস্থাটির বিদায়ী প্রেসিডেন্ট রবার্ট জেলিককে দায়ী করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতও।

সোমবার জাতীয় সংসদে দেওয়া এক বিবৃতিতে এই প্রকল্পে দেরির জন্য বিশ্ব ব্যাংককেই দায়ী করে তিনি বলেন, “সম্ভবত বিশ্ব ব্যাংকের বিদায়ী সভাপতি রবার্ট জেলিক তার মেয়াদকালে বিষয়টি সুরাহা করার উদ্দেশ্যে একটি অপরিণামদর্শী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যা বাংলাদেশের ভাবমূর্তিকে বিশেষভাবে বিপর্যস্ত করেছে। আমার বিশ্বাস বিশ্ব ব্যাংক সিদ্ধান্তটি পুনর্বিবেচনা করবে।”

মুহিত বলেন, “আমরা যে কোনো মুহূর্তে বিশ্ব ব্যাংকের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় লিপ্ত হব বলে আমি আশা রাখি। আমরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ যে এই অর্থবছরে আমরা পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করব, ইনশাল্লাহ।”

এর কয়েক ঘণ্টার মাথায় ওয়াশিংটনে সাংবাদিকদের কাছে জেলিকের সিদ্ধান্তের পক্ষেই কথা বলেন জিম ইয়ং কিম।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/জেকে/১০১০ ঘ.