ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, জুলাই ২৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- সৈয়দ আবুল হোসেন মন্ত্রী পদ ছাড়ায় এবং একজন ‘উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা’ ছুটিতে যাওয়ায় বিশ্ব ব্যাংক আবার পদ্মা সেতু প্রকল্পে ফিরে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ নিয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, “বিশ্ব ব্যাংক যে অভিযোগের ভিত্তিতে পদ্মা সেতুতে ঋণচুক্তি বাতিল করেছিল তা সাধারণত সচরাচর ঘটে না (আনইউজুয়্যাল)। এরপরেও আমরা তাদের সব শর্ত মেনে নিয়েছি। উই আর ট্র্যাক টু অ্যাকোমোডেট অল।”

“এই পরিস্থিতিতে আমি আশাবাদী যে, বিষয়গুলো বিবেচনা করে বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করবে”, বলেন মুহিত।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পর ১০ মাসের টানাপোড়েন শেষে সোমবার মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা দেন আবুল হোসেন।

সোমবার তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে সরে যান সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াও ছুটিতে যান।

বিশ্ব ব্যাংক যখন পদ্মা সেতুতে অনিয়মের অভিযোগ তোলে তখন আবুল হোসেন ছিলেন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে। আর মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ছিলেন সেতু বিভাগের সচিব ছিলেন।

সরকারি দায়িত্ব থেকে এই দুজনের সরে যাওয়ায় বিশ্ব ব্যাংকের সব শর্ত পূরণ হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন অর্থমন্ত্রী মুহিত।

পদ্মা সেতুতে পরামর্শক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ তুলে গত বছর সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এই অবকাঠামো প্রকল্পে ১২০ কোটি ডলারের ঋণ স্থগিত করে বিশ্ব ব্যাংক। আর গত ২৯ জুন এই প্রকল্পে ঋণচুক্তি বাতিল করে এই দাতা সংস্থা।

সচিবালয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সরবরাহ পরিস্থিতি নিয়ে এই আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে অন্যদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা মশিউর রহমান ও বিদ্যুৎ সচিব আবুল কালাম আজাদসহ অর্থ ও বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এআরএইচ/এএইচ/জেকে/১২৫০ ঘ.