ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, এপ্রিল ২৭ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- পুঁজিবাজার তদন্ত প্রতিবেদন ‘প্রকাশ ও আপত্তিজনক মন্তব্যের’ অভিযোগে কমিটিপ্রধান খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছাড়তে লিগ্যাল নোটিস দিয়েছেন এক আইনজীবী।

বুধবার দেওয়া ওই নোটিসে বলা হয়, নোটিশের অনুলিপি পাওয়ার ১০ দিনের মধ্যে পদত্যাগ না করলে হাইকোর্টে রিট করা হবে।

অ্যাডভোকেট আবুল হাসেমের পক্ষে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি সৈয়দা আফসার জাহান এই নোটিস পাঠান।

লিগ্যাল নোটিসের বক্তব্য অনুযায়ী, প্রতিবেদনটি ‘সরকারের সম্পদ’ হওয়া সত্ত্বেও তা ‘উদ্দেশ্যমূলকভাবে’ প্রকাশ করে ইব্রাহিম খালেদ ‘বিশ্বাসভঙ্গ’ করেছেন।

নোটিসে যা বলা হয়েছে

ওই প্রতিবেদন অত্যন্ত গোপনীয় হলেও আপনি [ইব্রাহিম খালেদ] তা গণমাধ্যমে প্রকাশ করেছেন- এ কথা উল্লেখ করে নোটিসে বলা হয়েছে, এরই মধ্যে বিভিন্ন ব্যক্তি ও কোম্পানি নিয়ে ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বেশ কিছু আপত্তিজনক মন্তব্য করেছেন।

‘ওই সব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান অর্থ পাচার ও শেয়ার বাজার বিপর্যয়ে দায়ী বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন। ওই প্রতিবেদন সরকারের সম্পদ হওয়া সত্ত্বেও আপনি উদ্দেশ্যমূলকভাবে তা প্রকাশ করে বিশ্বাসভঙ্গ করেছেন।’

নোটিসে বলা হয়েছে, আপনার ও আপনার কমিটির সদস্যদের স্পষ্ট স্বাক্ষর সম্বলিত বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে প্রকাশিত শেয়ার বাজার প্রতিবেদনের একটি কপি আমার মক্কেলের নিকট রয়েছে।

‘প্রতিবেদন প্রকাশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন অর্ডিনেন্স-১৯৬৯ এর ধারা-১৯ ও তথ্য অধিকার আইন-২০০৯ এর ধারা-৭ এরও লংঘন। এর মাধ্যমে আপনি ও আপনার কমিটির সদস্যরা বিশ্বাসভঙ্গের অপরাধ এড়াতে পারেন না।’

‘আপনার বক্তব্য পুঁজিবাজারের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সাংঘাতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে এবং শেয়ার বাজারের সূচকের পতন হচ্ছে।’

‘আপনার এবং আপনার পুত্রের বিরুদ্ধে পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন আপনার সততাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।’

পুঁজিবাজারে ধসের জন্য দায়ীরেদ কেবল সেনাশাসনে বিচার সম্ভব- ইব্রাহিম খালেদের এ বক্তব্য প্রসঙ্গে নোটিসে বলা হয়েছে, বিশেষ করে ‘বিতর্কিত’ প্রতিবেদনে উল্লেখিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেবল মার্শাল ল’তে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব বলে করা আপনার বক্তব্য সংবিধান-বহির্ভূত।

‘এর মাধ্যমে আপনি পরোক্ষভাবে মার্শাল ল’কে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এ কারণে আপনার বিরুদ্ধে প্ররোচনার অভিযোগ আনা যেতে পারে।’

‘এ সব কারণে আপনি একটি সরকারি পদে থাকার মতো বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছেন। বিশেষ করে সরকারি মালিকানাধীন বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসাবে থাকতে পারেন না।’

আপনি ওই পদে থাকার যোগ্যতা সম্পূর্ণভাবে হারিয়েছেন। পদটি আঁকড়ে থাকার কোন অধিকার আপনার নেই।- এ কথা উল্লেখ করে নোটিসে বলা হয়েছে, তাই এই নোটিশ পাওয়ার ১০ দিনের মধ্যে পদটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য আমি আহ্বান জানাচ্ছি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/প্রতিনিধি/এসএন/পিডি/১৯৩২ ঘ.