ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, মে ০৫ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- র‌্যাবের মামলায় কারাবন্দি ঝালকাঠীর কলেজছাত্র লিমন হোসেনকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধের ওই ঘটনা তদন্তে কেন বিচার বিভাগীয় কমিশন হবে না, তার কারণ জানাতে সরকারকে বলা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) একটি আবেদনে বৃহস্পতিবার বিচারপতি নজরুল ইসলাম ও বিচারপতি আনোয়ারুল হকের বেঞ্চ লিমনকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয়।

কথিত বন্দুকযুদ্ধে পঙ্গু লিমনকে কেন স্থায়ী জামিন দেওয়া হবে না, তার কারণও সরকারকে জানাতে বলা হয়েছে।

বিচার বিভাগীয় তদন্ত এবং স্থায়ী জামিনের বিষয়ে সরকারকে কারণ জানাতে সময় দেওয়া হয়েছে দুই সপ্তাহ।

র‌্যাবের একটি অস্ত্র মামলায় লিমনকে মঙ্গলবার লিমনকে কারাগারে পাঠায় ঝালকাঠীর একটি আদালত। বন্দি অবস্থায় বর্তমানে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে।

হাইকোর্টে লিমনের বিষয়ে আসকের পক্ষে শুনানি করেন শাহদীন মালিক। সরকার পক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ উল্লাহ কিসুল ও গাজী মামুনূর রশীদ।

শুনানির সময় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানও আদালতে ছিলেন। লিমনের ঘটনা নিয়ে শুরু থেকেই উষ্মা প্রকাশ করে আসছেন তিনি।

গত ২৩ মার্চ ঝালকাঠীর রাজাপুরে র‌্যাবের অভিযানের সময় গুলিতে আহত হয় লিমন। লিমনের দাবি, র‌্যাব সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে গুলি করে।

পরে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তার একটি পা কেটে ফেলতে হয়।

ঘটনার দিনই র‌্যাব বাদি হয়ে অস্ত্র আইনে এবং সরকারি কাজে বাধা দান, হত্যা চেষ্টা ও র‌্যাব সদস্যদের আহত করার অভিযোগে লিমনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করে।

অন্য মামলায় জামিন হলেও অস্ত্র মামলায় লিমনকে মঙ্গলবার কারাগারে পাঠানোর আদেশ হয়। ওই দিনই ঢাকা থেকে লিমনকে নেওয়া হয় ঝালকাঠীতে।

চিকিৎসাধীন লিমনকে ঢাকা থেকে ঝালকাঠীতে নিয়ে যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান। ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় লিমনকে দেখতেও গিয়েছিলেন তিনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএন/এমআই/১৩০০ ঘ.