ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, মে ১০ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- র‌্যাবের হত্যা-নির্যাতনের ছাড়পত্র থাকাসহ এইচআরডব্লিউ’র তোলা বিভিন্ন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, র‌্যাব আত্মরক্ষায় গুলি করে।

মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেন, “র‌্যাব কাউকে হত্যা করে না, সন্ত্রাসীদের পক্ষ থেকে গুলি ছোড়া হলেই র‌্যাব আত্মরক্ষায় গুলি করে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে মঙ্গলবার এ কথা বলেন মন্ত্রী।

মঙ্গলবার হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়া বিভাগের পরিচালক বার্ড অ্যাডামস ও পেমা আব্রাহামস স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। তাদের সাক্ষাৎ শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

২০০ জনকে হত্যা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সাহারা বলেন, এ পরিসংখ্যান সঠিক নয়।

বিচারবর্হিভূত হত্যাকাণ্ড হচ্ছে না বলে তিনি দাবি করেন।

সন্ত্রাসীদের পক্ষ থেকে গুলি করা হলেই কেবল র‌্যাব আত্মরক্ষার্থে গুলি করে- এ দাবি করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যদি অন্যায়ভাবে গুলি করা হয় তাহলে অভিযোগের প্রেক্ষিতে তা তদন্ত করা হয়। এ তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে র‌্যাব সদস্যদের শাস্তি পেতে হবে।

বিভিন্ন অভিযোগে র‌্যাবের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে এবং এ ব্যাপারে কোনো বাধা সৃষ্টি করা হচ্ছে না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ঝালকাঠির লিমনের ব্যাপারে তদন্ত চলছে, তদন্ত প্রতিবেদনে র‌্যাবের দোষ প্রমাণিত হলে শাস্তি পেতে হবে।

যদি অন্যায়ভাবে র‌্যাব কোন কাজ করে তাহলেই অবশ্যই তাদের বিচারের সম্মুখিন হতে হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ যাত্রা শুরু করে সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ বাহিনী র‌্যাব।

‘হত্যা-নির্যাতনের ছাড়পত্র’

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দাবি করেছে, হত্যা ও নির্যাতনের ছাড়পত্র নিয়ে র‌্যাব কাজ করছে। সন্ত্রাস দমনে গঠিত বিশেষ এ বাহিনীকে বিলুপ্ত করতে বাংলাদেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। একইসঙ্গে এ বাহিনীর প্রতি সমর্থন তুলে নিতে আহ্বান জানানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের প্রতি।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) নিয়ে সর্বশেষ একটি প্রতিবেদনে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এ বক্তব্য তুলে ধরেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের দৈনিক গার্ডিয়ান মঙ্গলবার জানায়।

বিচার-বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের মুখে থাকা র‌্যাব বাহিনীর প্রশিক্ষণে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের সহায়তা বন্ধ করতে এর আগেও আহ্বান জানিয়েছে নিউইয়র্কভিত্তিক এ সংগঠনটি।

বাংলাদেশে বর্তমান মহাজোট সরকারের দুই বছরের শাসনে র‌্যাবের ‘নির্যাতন-হত্যা’ বেড়েছে বলে তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, এ সময়কালে প্রায় ২০০ জনকে ‘হত্যা’ করেছে র‌্যাব।

র‌্যাবের নির্যাতনের স্বীকার কয়েকজন এবং তাদের স্বজনের কথাও তুলে ধরা হয় ৫৪ পৃষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে।

গত পাঁচ বছরে এক হাজারেরও বেশি বিচার-বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য এ বাহিনীকে দায়ী করে আসছে মানবাধিকার সংগঠনগুলো। এর মধ্যে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত যেমন রয়েছে, তেমনি নিরাপরাধ লোকও রয়েছে বলে অভিযোগ।

সম্প্রতি ঝালকাঠীর কলেজছাত্র লিমন হোসেন র‌্যাবের কথিত বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে পা হারানোর পর এ বাহিনীর সমালোচনায় মুখর হয় দেশের বিভিন্ন সংগঠন। বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানও এ ঘটনা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএইচএ/পিডি/১৯২৮ ঘ.