ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

হংকং, জুন ২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স/বিবিসি)— জার্মানি থেকে ইউরোপে খাদ্যবাহিত যে মারাত্মক ই.কোলাই ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে তা একেবারেই নতুন, বিষাক্ত ও অত্যন্ত সংক্রামক। অচেনা এ জীবণুটি আগে কখনো দেখা যায়নি।

ই.কোলাই ব্যাকটেরিয়া পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চীনের বিজ্ঞানীরা এ তথ্য দিয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডব্লিউএইচও’র একজন মুখপাত্রও বলেছেন ব্যাকটেরিয়াটি নতুন ধরনের।

চীনের শেনজেন শহরের বিজ্ঞানীরা জীবাণুটির জেনোম পরীক্ষা করে প্রাথমিক তথ্যে জানিয়েছেন, এই ই.কোলাই নতুন ধরনের একটি ব্যাকটেরিয়া যেটি অত্যন্ত বিষাক্ত এবং সংক্রামক।

এর মধ্যে এমন কিছু জিন আছে যা কয়েক ধরনের এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধে সক্ষম। আগে কখনো এর প্রাদুর্ভাব ঘটেনি।

ব্যাকটেরিয়াটিতে ই.কোলাই এনটেরোএগ্রেগেটিভ ই.কোলই (ইএইসি) এবং এসনটেরোহেমোরহাজিক ই.কোলাই (ইএইচইসি)– এ দুই ভিন্ন জীবাণুর জিন আছে।

দুটি ভিন্ন গ্রুপের ওই ই.কোলাই জিনের আদান-প্রদান ঘটেই অচেনা এ ব্যাকটেরিয়ার জন্ম হয়েছে।

এতে করে দুই ধরনের বিষ সৃষ্টি হয়ে তা মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি ডেকে আনছে বলে ধারণা প্রকাশ করেছেন লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী পল উইগলে।

এ জীবাণু সংক্রমণে রোগী ডাইরিয়া আক্রান্ত হয়ে এতে রক্তক্ষয় হওয়াসহ টিস্যু এবং কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিভিন্ন গবেষণাগারে পরীক্ষার ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছে।

জীবাণুটি এবং এর উৎস সম্পর্কে এখনো ধোঁয়াশা কাটেনি। ফলে রোগ মোকাবেলা করা কঠিন হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শাক-সবজি উৎপাদন থেকে খাবার প্লেটে পৌঁছানো পর্যন্ত কোন স্তরে এ সংক্রমণ ঘটছে তাও এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে পরবিহত, প্যাকেজিং. পরিস্কার করা অথবা পাইকারী বা খুচরা বিক্রেতাদের কাছে থাকার সময়ও এ ব্যাকটেরিয়া দূষণ ঘটে থাকতে পারে।

জার্মানিতে ইকোলাই সংক্রমণে ১৭ জন মারা গেছে। সুইডেনে একজন মিলিয়ে ইউরোপে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ জনে। ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র মিলিয়ে ১৫০০ জনের দেহে এ ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, স্পেন, সুইডেন, ডেনমার্ক, ব্রিটেন, সুইজারল্যান্ডেও এ ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এলকিউ/এইচএ/২২১২ ঘ.