ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, জুলাই ০৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- রাজধানীতে হরতালের পর এবার তৃণমূল পর্যায়ে আন্দোলন ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে তেল-গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি।

কনকো-ফিলিপসের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের দাবিতে ঘোষিত আন্দোলন কর্মসূচিতে ঝটিকা সফর, জেলা ও উপজেলায় প্রতিনিধি সভার মতো কর্মসূচি যোগ করেছে সংগঠনটি।

রোববার হরতালে নেতা-কর্মীদের ওপর ‘নির্যাতন’ ও আটকের প্রতিবাদে সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে কমিটির আহ্বায়ক শেখ মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ নভেম্বর পর্যন্ত এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

সমাবেশে শহিদুল্লাহ বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক কোম্পানিকে খুশি করার জন্য কনকো-ফিলিপসের সঙ্গে উৎপাদন বণ্টন চুক্তি করা হয়েছে।”

তিনি বলেন, “জাতীয় সম্পদ পাচারের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সরকার পুলিশ দিয়ে নির্যাতন ও হামলা চালিয়েছে বলেই আমার মনে হয়।”

পুলিশি নির্যাতন, গ্রেপ্তার ও মামলা দিয়ে জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলন দমন করা যাবে না বলেও হুঁশিয়ার করে দেন শহিদুল্লাহ।

সংগঠনের সদস্য সচিব আনু মুহাম্মদ বলেন, “হরতালে নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়েছে যারা জনগণের সম্পদ রক্ষার আন্দোলন করছে তারা জনগণের পক্ষের শক্তি। আর যারা জনগণের সম্পদ লুণ্ঠন ও পাচারের জন্য মরিয়া হয়ে আছে- তারা দিন দিন জনবিচ্ছন্ন হয়ে বহুজাতিক কোম্পানি ও বিদেশি প্রভুদের উপর নির্ভর করে ক্ষমতায় থাকতে চায়।”

আটক নেতাকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

কমিটি ঘোষিত আন্দোলন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- জুলাইয়ে সারাদেশে ঝটিকা সফর; আগস্টে জেলা ও উপজেলায় প্রতিনিধি সভা; সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরের মধ্যে ঢাকা-কক্সবাজার এবং ঢাকা-সুনেত্র গ্যাস ক্ষেত্রমুখী রোড মার্চ এবং নভেম্বরে ঢাকায় মহাসমাবেশ।

অন্যদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম এম আকাশ, সিপিবি নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স সমাবেশে বক্তব্য দেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এআরআর/এএল/জেকে/২১৪৬ ঘ.