ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, অগাস্ট ০৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- দীর্ঘদিন ধরে অনুরোধ জানানোর পর অনুপ চেটিয়াকে পেতে যাচ্ছে ভারত। উলফার এ নেতাকে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন।

আগামী মাসে মহমোহন সিংয়ের সফরের আগেই অনুপ চেটিয়াকে পাওয়ার আশা করছিলো নয়া দিল্লি। ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরম তার সফরের সময়ও এ জন্য অনুরোধ করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “অনুপ চেটিয়াকে হস্তান্তরের আইনি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তাকে হস্তান্তর করা হবে।”

ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসামের (উলফা) সাধারণ সম্পাদক অনুপ চেটিয়া (গোলাপ বড়–য়া) বিদেশি মুদ্রা ও স্যাটেলাইট ফোনসহ বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে বিদেশি ও পাসপোর্ট আইনে ১৯৯৭ সালের ২১ ডিসেম্বর ঢাকায় গ্রেপ্তার হন।

পরে আদালত তাকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়। সাজার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও আইনি জটিলতার কারণে তিনি এখনো বাংলাদেশের কারাাগারে রয়েছেন। বাংলাদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়ে আদালতে তার আবেদনেরও নিষ্পত্তি হয়নি।

অনুপ চেটিয়াসহ উলফার রাজনৈতিক শাখার অন্যান্য নেতাদের নিয়ে ভারতের সরকারের সঙ্গে শান্তি প্রক্রিয়ার আলোচনা শুরু করার জন্য চেটিয়াকে ফেরত নিতে চায় নয়াদিল্লি।

উলফার কয়েকজন নেতা পক্ষে থাকলেও সামরিক শাখার প্রধান পরেশ বড়–য়া নয়া দিল্লির সঙ্গে শান্তিচুক্তির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন এবং শান্তি প্রক্রিয়ায় তার অংশ না নেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে অনুপ চেটিয়াকে হাতে পাওয়া ভারত গুরুত্ব দিয়ে দেখছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

১৯৭৯ সাল থেকে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্য আসামকে স্বাধীন করার লক্ষ্যে সশস্ত্র আন্দোলন চালিয়ে আসছে উলফা।

উলফার বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা বন্ধ করতে একটি রাজনৈতিক সমাধান খুঁজছে আসাম রাজ্য ও ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

ভারতের গোয়েন্দা সংস্থার (আইবি) সাবেক প্রধান পিসি হালদারকে প্রধান আলোচনাকারী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে ভারতের সরকার। শান্তি আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টি করতে রাজখোয়াসহ গোপন অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়া কয়েকজন উলফা নেতাকে জামিনে মুক্তিও দেওয়া হয়েছে।

গত জানুয়ারিতে মুক্তি পাওয়ার পরে রাজখোয়া জানান, অনুপ চেটিয়া শান্তি আলোচনা প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করুক, তা চান তিনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএইচএ/এমআই/১৪০০ ঘ.