ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, অগাস্ট ০৫ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- বাণিজ্যমন্ত্রী ‘হীরক রাজার’ সভাকবির মতো জনগণকে কম খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন উল্লেখ করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার দেশে ১৯৭৪ সালের মতো দুর্ভিক্ষ আনার ‘ষড়যন্ত্র’ করছে।

শুক্রবার এক ইফতার মাহফিলে তিনি বলেন, “চলচ্চিত্র হীরক রাজার দেশের একটি চরিত্রের মতো আমাদের বাণিজ্যমন্ত্রীও কম খেতে বলেছেন। এ থেকে বোঝা যায়, মানুষের খাবার খাওয়া বন্ধ করে দিয়ে তারা ১৯৭৪ সালের মতো দেশে আরেকটি দুর্ভিক্ষ আনতে চায়।”

সত্যজিত রায়ের বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘হীরক রাজার দেশে’ হীরক রাজার সভাকবি মন্ত্র পড়ে কৃষক-শ্রমিকদের ‘মগজ ধোলাই’ করতেন। শ্রমিকদের জন্য তার মন্ত্রটি ছিল- অনাহারে নাহি খেদ, বেশি খেলে বাড়ে মেদ।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে বিষয়ক এক মতবিনিময় সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান বলেন, “আমি বললে তো আপনারা রাগ করবেন, কম খান, ভালো থাকবেন।”

দেশের বর্তমান অবস্থাকে ‘সংকটজনক’ অভিহিত করে অনুষ্ঠানে মির্জা ফখরুল বলেন, “স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র আজ ধ্বংসের পথে। ৪০ বছরে আমাদের দেশের যেসব স্তম্ভ তৈরি হয়েছিল, আজ তা নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে। বিচার বিভাগকে বিতর্কিত করে ফেলা হয়েছে।”

বিএনপি সমর্থক চিকিৎসক সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ইস্কাটনের লেডিস ক্লাবে এই চিকিৎসক সমাবেশ ও ইফতার মাহফিলের আয়েঅজন করা হয়। ৬ অগাস্ট সংগঠনটির ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

সমাবেশে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পূণর্বহাল, স্বাস্থ্যখাতে বাজেট বৃদ্ধি, চিকিৎসকসহ বিরোধী নেতা-কর্মীদের ওপর নির্যাতন বন্ধসহ ১৫ দফা দাবি উপস্থাপন করা হয়।

বর্তমান সরকারের ক্ষমতায় থাকার নৈতিক অধিকার নেই দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, “যে সরকার দেশের জমি অন্যকে দিয়ে দেয়, স্বাধীনতা রক্ষা করতে পারে না, তাদের আর ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া যায় না।”

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান তিনি।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সাবেক উপদেষ্টা আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুুর রহমান বলেন, “এই সরকার ফ্যাসিস্ট। তারা নারীদেরও সম্মান দিতে জানে না।”

আদালতে হট্টগোলের মামলায় বিএনপির সংসদ সদস্য সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়াকে গ্রেপ্তার ও তাকে হেফাজতে (রিমান্ড) নেওয়ার আবেদনের সমালোচনা করে মাহমুদুুর বলেন, “তারা একজন মহিলা সংসদ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে রিমাণ্ডের আবেদন করেছে। রাষ্ট্রক্ষমতায় এতো মহিলা থাকতে আরেকজন নারীর ওপর নির্যাতন চালাতে কীভাবে রিমাণ্ড চাওয়া হয়?”

বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে পেশাজীবীসহ সবাইকে এক হয়ে আন্দোলনে নামার আহবান জানান তিনিও।

ড্যাব সভাপতি অধ্যাপক এ কে এম আজিজুল হকের সভাপতিত্বে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, সহসভাপতি আবদুল্লাহ আল নোমান, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা, যুব দলের সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুছ তালুকদার দুলু, কাজী মাজহারুল ইসলাম দোলন, ড্যাব মহাসচিব অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক মোস্তাক রহিম স্বপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএম/জেকে/২০১৩ ঘ.