ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- দেশের ৪৭টি তফসিলি ব্যাংকের সঙ্গে নতুন আরো কয়েকটি যোগ করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এক যুগ পর বাণিজ্যিক ব্যাংক বাড়ানোর এ সিদ্ধান্ত রাজনৈতিক বলে আগেই বলেছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় নতুন ব্যাংক প্রতিষ্ঠার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয় বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক ও গভর্নরের প্রটোকল কর্মকর্তা এ এফ এম আসাদুজ্জামান।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “নতুন ব্যাংকের জন্য একটি নীতিমালা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আগের নীতিমালার সঙ্গে আরো কিছু শর্ত যোগ করা হয়েছে। নতুন নীতিমালার ভিত্তিতে অনুমোদন দেওয়া হবে।”

তবে কয়টি ব্যাংককে অনুমোদন দেওয়া হবে, সে বিষয়ে কিছু বলেননি আসাদুজ্জামান।

নতুন ব্যাংক প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আরোপ করা শর্তের মধ্যে রয়েছে, নতুন ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন হতে হবে ৪০০ কোটি টাকা। শুধু সাধারণ শেয়ারের মাধ্যমে এ মূলধন পূরণ করতে হবে।

ব্যাংক ব্যবসা শুরুর তারিখ থেকে তিন বছরের মধ্যে বাজারে শেয়ার ছেড়ে পরিশোধিত মূলধনের সম-পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করতে হবে।

কোনো ব্যক্তি বা তার পরিবারের সদস্য ঋণখেলাপি অথবা করখেলাপি হলে ওই ব্যক্তি কোনো ব্যাংকের উদ্যোক্তা হতে পারবে না।

আওয়ামী লীগ সরকারের আগের মেয়াদে (১৯৯৬-২০০১) কয়েকটি নতুন যাত্রা শুরু করেছিলো। এরপর আর কোনো ব্যাংক অনুমোদন পায়নি।

অর্থমন্ত্রী গত ২৪ জুলাই এক আলোচনা সভায় বলেন, সরকার রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে কয়েকটি নতুন ব্যাংকের লাইসেন্স দেবে।

এর আগে জাতীয় সংসদেও নতুন ব্যাংক প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক তখন জোর আপত্তি জানিয়ে বলেছিলো, নতুন ব্যাংকের প্রয়োজন নেই।

বাংলাদেশে বর্তমানে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি মিলিয়ে তফসিলি ব্যাংকের সংখ্যা ৪৭। এর বাইরে আরো শতাধিক বিভিন্ন ধরনের আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এআরএইচ/এমআই/১৫৪০ ঘ.