ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- বিএনপিকে ভাঙার ষড়যন্ত্র জরুরি অবস্থার সময়ের মতো আবার শুরু হয়েছে বলে দাবি করেছেন দলটির মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বুধবার এক ছাত্রসমাবেশে বলেন, “জনগণ যখন সরকারের বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে, তখনই বিএনপি ও গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে আবারো গভীর ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে গেছে।”

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে বিএনপি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। তখন দলেরই কয়েকজন নেতা আলাদাভাবে বিএনপির কার্যক্রম চালান, যারা ‘সংস্কারপন্থী’ বলে পরিচিত হয়েছিলেন। এদের অনেকে পরে অবশ্য দলের মূলধারায় ফিরেছেন।

বিএনপিকে ভাঙতে দলের কয়েকজন নেতার সঙ্গে সরকারের যোগাযোগ চলছে বলে বুধবার প্রকাশিত একটি দৈনিকের প্রতিবেদনের প্রতি ইঙ্গিত করে ফখরুল বলেন, “আওয়ামী লীগ কি এতই দেউলিয়া হয়ে গেছে যে তাদের অন্য দল থেকে নেতা নিতে হচ্ছে।”

উইকিলিকসের প্রকাশ করা তারবার্তা ধরে বিএনপির নেতাদের চরিত্র হনন চলছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ফখরুল বলেন, “এই উইকিলিকসের তথ্য কোথা থেকে আসে, আমরা তা জানি না। উইকিলিকসের তথ্য নিয়ে রূপকথার গল্প সাজিয়ে একটি চিহ্নিত মহল বিএনপির বিরুদ্ধে অপপ্রচারের কাজটি করছে।”

উইকিলিকসের তারবার্তা ধরে বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশে সরকারের যোগসূত্র রয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

ফখরুল বলেন, “যখন বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে দেশে-বিদেশে ব্যর্থতার প্রচার শুরু হয়েছে, তখন জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে উইকিলিকসের তারবার্তার গল্প সাজিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে ১/১১ এর মতো অপপ্রচার শুরু করেছে একটি মহল।”

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফর ব্যর্থ দাবি করে এ জন্য সরকারের পররাষ্ট্র নীতিকে দায়ী করেন বিএনপি নেতা।

তিনি বলেন, “অভিন্ন নদীর পানি বণ্টনের কোনো সুরাহা হয়নি। তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তিও হয়নি। এখন সরকার জনগণকে বিভ্রান্ত করছে যে এজন্য তারাও (সরকার) ট্রানজিট চুক্তি করেনি। এটা সম্পূর্ণ ভাঁওতাবাজী। সরকার ট্রানজিট দিয়ে দিয়েছে। কেবল সম্মতিপত্রে সই করা বাকি।”

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আট শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীর চাকরিচ্যুতির ঘটনায়ও উদ্বেগ প্রকাশ করেন ফখরুল।

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে খালেদা জিয়ার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে ছাত্রদলের সমাবেশে বক্তব্য রাখেন তিনি।

সমাবেশ থেকে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ১৭ সেপ্টেম্বর বিভাগীয় শহরে এবং ২১ সেপ্টেম্বর জেলায় জেলায় বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেন ছাত্রদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএম/এমআই/২০০৫ ঘ.