ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

শেরপুর, সেপ্টেম্বর ১৬ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তারা।

শুক্রবার দুপুরে শেরপুরের বিভিন্ন স্থান ঘুরে সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মো. আব্দুর রাজ্জাক খান সাংবাদিকদের বলেন, “শেরপুরে কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী অপরাধের যথেষ্ট সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। যতো দিন যাচ্ছে, ততোই তার বিরুদ্ধে নতুন নতুন সাক্ষ্য পাওয়া যাচ্ছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে।”

তদন্ত দলের আরেক সদস্য ইন্সপেক্টর এসএম ইদ্রিস আলী এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন। শেরপুর এর আগেও দুই দফা তথ্য-প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

শুক্রবার দুপুরে তদন্ত দলের সদস্যরা শেরপুর এসে ১৯৭১ সালে কামারুজ্জামানের নির্যাতন সেল হিসেবে পরিচিত নয়ানি বাজারের ব্যবসায়ী সুরেন্দ্র মোহন সাহার বাসভবন পরিদর্শন করেন।

এরপর তারা শেরপুর থানায় ৭১ সালে কামারুজ্জামানের ঘনিষ্ট সহচর এবং ওই সময় কামারুজ্জামানের মদদে সংঘটিত ঘটনাবলীর প্রত্যক্ষ সাক্ষী মোহন মুন্সী, ৭১ সালে নিহত (কামারুজ্জামানের কথিত নির্দেশে) ছাত্রনেতা মো. গোলাম মোস্তফার ভাই মোশররফ হোসেন তালুকদারের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

রাতে ঢাকার উদ্দেশে শেরপুর ত্যাগ করার আগে ইন্সপেক্টর রাজ্জাক বলেন, ট্রাইব্যুনালের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেই কামারুজ্জামানের বিরুদ্ধে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হবে।

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধ, গণহত্যা ও যুদ্ধাপরাধ বিচারের জন্য সরকার গত ২৫ মার্চ তদন্ত সংস্থা, আইনজীবী প্যানেল ও ট্রাইব্যুনাল গঠনের ঘোষণা দিলে বহু প্রতীক্ষিত এই বিচারের প্রক্রিয়া শুরু হয়।

এ বিষয়ে দায়ের করা মামলায় গত বছরের ১৩ জুলাই কামারুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করা হয়। এখন তিনি ঢাকা কারাগারে আটক রয়েছেন।

জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী এবং সহকারী সেক্রেটারি আব্দুল কাদের মোল্লাও একই অভিযোগে কারাগারে রয়েছেন।

এছাড়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল আলীমকেও এই মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। আলীম বর্তমানে শর্তসাপেক্ষে জামিনে রয়েছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/প্রতিনিধি/ডিডি/০০১৮ ঘ.