ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, অক্টোবর ০৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- ট্রান্সশিপমেন্টের মাধ্যমে পণ্য পরিবহনে ভারতকে ভর্তুকি দেওয়ার অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে- বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি।

মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “কোনো সুবিধা দেওয়া হচ্ছে কি না তা আমি অন্যান্য সংস্থাগুলোকে জানাতে বলবো।”

তিনি বলেন, “অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে সব ধরনের প্রযোজ্য ফি আদায় করেছে।”

কয়েকদিন আগে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন, ভারতকে ট্রান্সশিপমেন্ট দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ফি তো নিচ্ছেই না, বরং ভর্তুকি দিচ্ছে।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে আশুগঞ্জ হয়ে কলকাতা থেকে ত্রিপুরায় পণ্য পরিবহন শুরু করেছে ভারত।

এ ব্যাপারে দীপু মনি বলেন, “যতদূর জানি চারটি ট্রাককে পণ্য পরিবহনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, যার তিনটির মালিক বাংলাদেশি।

“ট্রানজিট ও ট্রান্সশিপমেন্ট কাঠামোকে সম্পূর্ণরূপে সক্রিয় করতে আমাদের আরো অনেক আইনি উপায় নিয়ে কাজ করতে হবে এবং এর সঙ্গে অনেক বিষয় সম্পৃক্ত।”

গত বছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে আশুগঞ্জকে নদীবন্দর হিসেবে ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়। তবে এটিকে শুধু নদীবন্দর নয়, ট্রানশিপমেন্টের দ্বিতীয় কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

নদী অববাহিকার যৌথ ব্যবস্থাপনা

মন্ত্রী বলেন, “নদী অববাহিকার যৌথ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে চুক্তির জন্য চীনকে অনুরোধ করা হয়েছে।”

“চীনের সঙ্গে ব্রহ্মপুত্রসহ আমাদের কয়েকটি অভিন্ন নদী রয়েছে। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য বলেছি।”

এ বিষয়ে ভবিষ্যতে চুক্তির ব্যাপারে দুই দেশই ইতিবাচক বলে জানান দীপু মনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএসজেড/এএল/পিডি/২২২৫ ঘ.