ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, অক্টোবর ০৫ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- মনমোহন সিংয়ের সাম্প্রতিক ঢাকা সফরে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি কী কারণে হয়নি তা সবাই জানে- বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি।

মন্ত্রী মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “দুই সরকারই তিস্তা চুক্তি করার জন্য প্রস্তুত ছিলো।”

বর্তমান সরকারের মেয়াদে এ চুক্তি হবে বলেও এদিন আশা প্রকাশ করেন দীপু মনি। তবে এ বিষয়ে দিনক্ষণ নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি তিনি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের গত ৬-৭ সেপ্টেম্বরের ঢাকা সফরে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি হওয়ার কথা থাকলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের আপত্তির কারণে তা হয়নি।

চুক্তিটি যে হচ্ছে না তা ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের বরাতে মনমোহনের সফরের আগের দিন (৫ সেপ্টেম্বর) ভারতের গণমাধ্যমে এবং বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়ে।

৫ সেপ্টেম্বর ভারতের পররাষ্ট্র সচিব রঞ্জন মাথাই দিল্লিতে সাংবাদিকদের বলেন, “তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের আপত্তি উপেক্ষা করে এগোবে না নয়া দিল্লি।”

সেদিন রাতেই দীপু মনি সাংবাদিকদের বলেন, “আমরা (ভারতের সঙ্গে) যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন নই। আগে যা ছিল সে অবস্থানেই আছি।”

“আগামীকাল তিস্তা চুক্তি হচ্ছে।”

তার ওই বক্তব্য সম্পর্কে জানতে চাইলে মঙ্গলবার দীপু মনি বলেন, “আমার সেই সাক্ষাৎকার নিশ্চয় আপনাদের সবার কাছে আছে। আমি বলেছিলাম, আশা করছি এই চুক্তি হবে।”

“যে কোনো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সফরের আগে বৈঠকগুলোতে বিভিন্ন চুক্তি নিয়ে আলোচনা হয়,” উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “এর মানে এই নয় যে সব চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।”

তবে বাংলাদেশ কেন ট্রানজিট দেওয়া থেকে বিরত রইলো- এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “কৌশলগত বা অন্য যেকোনো কারণে একটি দেশ নির্দিষ্ট একটি চুক্তি থেকে বিরত থাকতেই পারে।”

মনমোহন সিংয়ের সফরে তিস্তা চুক্তির পাশাপাশি ভারতকে বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে ট্রানজিট সুবিধা দেওয়ার বিষয়ে একটি প্রটোকল স্বাক্ষর হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি।

ওই সফরে দুদেশের মধ্যে আঞ্চলিক সহযোগিতা বিষয়ক একটি রূপরেখা চুক্তি, স্থলসীমা বিষয়ক একটি প্রটোকল এবং বিভিন্ন বিষয়ে আটটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএসজেড/এএল/পিডি/০০১৭ ঘ.