ক্যাটেগরিঃ bdnews24

সান ফ্রান্সিসকো, অক্টোবর ০৬ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- বিশ্বখ্যাত কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস আর নেই। বুধবার ৫৬ বছর বয়সে ক্যালিফোর্নিয়ার পালো আলতোয় তিনি মারা যান।

বৃহস্পতিবার অ্যাপলের ওয়েবসাইটে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়।

দীর্ঘদিন ধরে অগ্ন্যাশয় ক্যান্সারে ভুগছিলেন এই কম্পিউটার প্রকৌশলী ও উদ্যোক্তা। ম্যাক, আইফোন ও আইপডের মতো বিভিন্ন প্রযুক্তিগত বিস্ময়ের উদ্ভাবক প্রতিষ্ঠানটির সাবেক প্রধান নির্বাহী ছিলেন।

অ্যাপলের ওয়েবসাইটে তার মৃত্যুসংবাদ জানানোর পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতারা গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। এই তালিকায় অ্যাপলের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে পরিচিত মাইক্রোসফটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস এবং ফেইসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জুকারবার্গও রয়েছেন।

চলতি বছরের অগাস্টে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন জবস। তার স্থলাভিষিক্ত হন জবসের দীর্ঘদিনের সহকর্মী টিম কুক।

শারীরিক অসুস্থতার কারণেই অ্যাপলের মূল চালিকাশক্তি হিসেবে বিবেচিত জবস পদ থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য হন।

অ্যাপলের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, “স্টিভের মেধা, ভালোবাসা এবং উদ্যমই ছিল অসংখ্য উদ্ভাবনের নেপথ্যে, যা আমাদের সবার জীবনযাত্রার মানোন্নয়ে বিশাল ভূমিকা রেখেছে। স্টিভের জন্যই বিশ্ব আজ অনেক উন্নত।”

অ্যাপল এই স্বপ্নদ্রষ্টার সম্মানে তাদের ওয়েবসাইটে স্টিভের সাদাকালো একটি বড় ছবি জুড়ে দিয়েছে। সেখানে লেখা, ‘স্টিভ জবস: ১৯৫৫-২০১১’। প্রতিষ্ঠানটির সদর দপ্তরের বাইরে তাদের পতাকা অর্ধনমিত।

দীর্ঘদিন ধরেই শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন স্টিভ জবস। অগ্ন্যাশয়ে বিরল ক্যান্সারে ভুগছিলেন তিনি। তার অসুস্থতার কারণে প্রতিষ্ঠানটির ভবিষ্যতসহ, বিনিয়োগকারী এবং স্টিভের ভক্তদের মাঝে গভীর উদ্বেগ ছিল।

অ্যাপল তাদের নতুন আইফোন বাজারজাতের ঘোষণা দেওয়ার একদিন পরই স্টিভ মারা গেলেন।

স্টিভের মৃত্যুর খবর শোনার পর বিল গেটস তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, “পৃথিবী গৌরবজনক প্রভাববিস্তারী এক বিরল ব্যক্তিত্বকে প্রত্যক্ষ করেছে। আগামী অনেক প্রজন্ম তাকে স্মরণ করবে। আমরা যারা তার সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি, তারা সত্যিই ভাগ্যবান। নিশ্চিতভাবেই এ এক বিশাল সম্মানের বিষয়।”

নিউ ইয়র্কে অ্যাপলের বিক্রয়কেন্দ্রের সামনে শোকার্তরা মোমবাতি জ্বালিয়ে এবং ফুল দিয়ে স্টিভের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।

১৯৭৬ সালে বন্ধু স্টিভ ওজনিয়াককে সাথে নিয়ে তিনি অ্যাপল প্রতিষ্ঠা করেন। দ্রুতই এটি বিশ্বের শীর্ষ কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।

চলতি বছরের ২৪ অগাস্ট অ্যাপলের প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে সরে দাঁড়ান স্টিভ জবস। স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণে নিজ হাতে গড়া ওই প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদটি ত্যাগ করেন তিনি। তার স্থলাভিষিক্ত হন চিফ অপারেটিং অফিসার টিম কুক।

এ বছরের ১৭ জানুয়ারি থেকে স্বাস্থ্যগত কারণে ছুটিতে ছিলেন ৫৬ বছর বয়সী স্টিভ জবস। তিনি কতদিন ছুটিতে থাকবেন ওই সময় তা জানানো হয় নি। পরবর্তী সময়ে আবারও তিনি ফিরে আসেন তার নিজ হাতে গড়া স্বপ্নের প্রতিষ্ঠানে।

প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর কারণ হিসেবে জবস তার অসুস্থতাকেই কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। অ্যাপল বোর্ড বরাবর পাঠানো সংক্ষিপ্ত একটি চিঠিতে জবস লিখেছিলেন, “আমি সবসময়ই বলেছি, যদি এমন কোনোদিন আসে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে আমি আমার দায়িত্ব ও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছি না, তবে আমিই সেটি প্রথম জানাবো। অপ্রত্যাশিতভাবে সেই দিনটি এসেছে। আমি অ্যাপলের প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছি।”

ওই চিঠিতে তিনি আরো লিখেন, “আমি বিশ্বাস করি অ্যাপলের উজ্জ্বলতম এবং উদ্ভাবনী সময় সামনেই এবং আমি আগামী সময়ের দিকে তাকিয়ে আছি যেখানে নতুন কোনো ভূমিকায় আমি এর সাফল্যে অবদান রাখতে পারবো।”

চিঠিতে জবস সব সহকর্মীর প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছিলেন।

২০০৪ সালের অগাস্টে স্টিভ জবসের শরীরে বিরল ক্যান্সার ধরা পড়ে। তখন অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তার ক্যান্সারআক্রান্ত টিউমার অপসারণ করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৯ সালে স্টিভ জবসের পাকস্থলী প্রতিস্থাপন করতে হয়। সৃজনশীলতা ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন জবসের অসামান্য দক্ষতার কারণে অ্যাপল বিশ্বের অন্যতম প্রধান কম্পিউটার প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। ক্রমে অ্যাপল ও স্টিভ জবস সমার্থক হয়ে ওঠে।

২৪ অগাস্ট অ্যাপলের প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর আগে সর্বশেষ ২০১১ সালের জানুয়ারিতে ছুটি নেন তিনি।

বিশ্বখ্যাত ম্যাগাজিন ফোর্বসের হিসেব অনুযায়ী ২০১০ সালে জবসের সম্পদের পরিমাণ গিয়ে দাঁড়ায় ৬.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। এই হিসেব অনুযায়ী আমেরিকার ধনীদের তালিকায় জবসের ঠাঁই হয় ৪২ নম্বরে।

তবে তার এই বিশাল সম্পদের উত্তরাধিকারী কে বা কারা হবেন সে সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনোকিছু জানা যায় নি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/সিআর/১১৪৭ ঘ.

*** ***


দৃষ্টি আকর্ষণ: ইংরেজি বা রোমানে হরফে মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন। আপনার নাম বাংলায় লিখুন। ইংরেজি ও রোমান হরফে করা মন্তব্য প্রকাশ করা হবে না।