ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, অক্টোবর ১৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে শামীম ওসমানের পক্ষে দলের তিন সাংগঠনিক সম্পাদক কথা বললেও তা দলীয় সমর্থন নয় বলে জানালেন সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত শুক্রবার সাংবাদিকদের বলেন, নারায়ণগঞ্জে কাউকেই আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সমর্থন দেওয়া হয়নি।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জে গিয়ে শামীম ওসমানের পক্ষে তিন সাংগঠনিক সম্পাদকের সমর্থন ঘোষণার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে সুরঞ্জিত বলেন, “সেটা তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার।”

সুরঞ্জিতের মতো একই কথা বৃহস্পতিবার রাতেও বলেছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।

সুরঞ্জিত বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে দুই ধরনের নির্বাচনী ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে, জাতীয় সরকার এবং স্থানীয় সরকার। জাতীয় সরকার নির্বাচন ব্যবস্থায় দলীয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়ার বিধান থাকলেও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এ ধরনের কোনো সুযোগ নেই।

“নির্বাচনে যদি কোনো দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দিতেই হয়, তবে সে ক্ষেত্রে আগে সংসদ থেকে এ সংক্রান্ত আইন পাস করিয়ে আনতে হবে।”

তবে তার আগে সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গিয়ে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, খালেদ মাহমুদ চৌধুরী ও আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন নির্বাচনে শামীমের প্রতি সমর্থনের কথা জানান। একে দলীয় সমর্থন বলে শামীমের সমর্থকরাও প্রচার করে।

তবে শামীমের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভি এর প্রতিক্রিয়ায় বলেছিলেন, “এটি কোনো দলীয় সমর্থন নয়। শামীম ওসমানের বন্ধু বান্ধবদের সমর্থন।”

আগামী ৩০ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দুই নেতা সাবেক সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান এবং নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র সেলিনা হায়াত আইভির মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হন দলের শীর্ষ নেতারা। ফলে দুজনই নির্বাচনী লড়াইয়ে রয়েছেন।

< ন>‘জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে কোন মুক্তিযুদ্ধের ডাক’

রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত আলোচনা সভায় সুরঞ্জিত বিরোধী দলের সমালোচনা করে বক্তব্য রাখেন।

সরকার পতন ছাড়া খালেদার রাজপথ না ছাড়ার ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় সুরঞ্জিত বলেন, “আমাদের বিরোধীদলীয় নেতা বলেছেন, সরকারের পতন না ঘটিয়ে নাকি তিনি ঘরে ফিরবেন না। এত বৃষ্টি বাদলের দিন, তিনি তাহলে এখন কোথায় থাকবেন?

“তিনি নাকি আরো একটি মুক্তিযুদ্ধ করবেন। আমার প্রশ্ন হলো- জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে তিনি কোন মুক্তিযুদ্ধের ডাক দিচ্ছেন। তিনি কি আবার পাকিস্তানে ফিরে যাওয়ার জন্য যুদ্ধ করবেন।”

তবে বিরোধী দলের রাজনৈতিক কর্মসূচি প্রতিহত করতে দলকে শক্তিশালী করার ওপর গুরুত্ব দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য।

তিনি বলেন, “অনেক হয়েছে। সিলেটের মাদ্রাসা মাঠ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করুন। ভেদাভেদ ভুলে শত্র”দের বিপক্ষে নিজেদের ঐক্যবদ্ধ করুন।”

‘বিরোধী দলের প্রতিহিংসা ও হানাহানির রাজনীতি : মুক্তির সনদ থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনার শান্তির মডেল’ শীর্ষক এ আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, নাট্যব্যক্তিত্ব ড. এনামুল হক, অভিনেতা আকবর হোসেন পাঠান ফারুক প্রমুখ।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এএইচএ/এমআই/১৫৩৮ ঘ.