ক্যাটেগরিঃ bdnews24

নয়া দিল্লি, ডিসেম্বর ২০ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত হওয়ার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছে ভারত সরকার।

তবে ভারত বলছে, সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়ে আত্মরক্ষার জন্যই গুলি ছুড়েছিল সে দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

মঙ্গলবার ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, “সীমান্তে বাংলাদেশি ও ভারতীয় নাগরিক হতাহতের যেসব ঘটনা ঘটেছে, তাতে ভারত সরকার দুঃখিত। সীমন্ত এলাকায় প্রাণহানী রোধে বিএএসএফ সর্বোচ্চ সংযম দেখিয়ে আসছে। কেবল কিছু ঘটনায় আত্মরক্ষার স্বার্থেই তারা গুলি ছুড়তে বাধ্য হয়েছে।”

গত শনিবার কুড়িগ্রাম-দিনাজপুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে তিন বাংলাদেশি নিহত হয়। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তদন্তের আহ্বান জানানো হয় নয়া দিল্লিকে।

রোববার নয়া দিল্লিতে পাঠানো এক প্রতিবাদ লিপিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, বিএসএফ সীমান্তে বাংলাদেশি নাগরিকদের হত্যা করবে না বলে ভারত সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে নিশ্চয়তা দেওয়ার পরও তিন বাংলাদেশির হত্যাকাণ্ডে বাংলাদেশ হতাশ।

এর প্রতিক্রিয়ায় ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, সে দেশের মালদহ জেলার গোবিন্দপুর এবং কোচবিহারের নারায়ণগঞ্জ সীমান্তে সন্ত্রাসীদের গুলির মুখে আত্মরক্ষার জন্যই বিএসএফ সদস্যরা গুলি চালিয়েছিল।

ভারতীয় সীমান্তরক্ষীদের হাতে নিরস্ত্র বাংলাদেশি নিহত হওয়ার ঘটনা বাড়তে থাকায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল চলতি বছরের শুরুতে তাদের প্রতিবেদনে ভারত সরকারের কঠোর সমালোচনা করে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকেও আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানানো হয়।

এই পরিপ্রেক্ষিতে সে সময় ভারতের পক্ষ থেকে জানানো হয়, হতাহতের ঘটনা কমিয়ে আনতে ‘প্রাণঘাতি নয়’- এমন অস্ত্র দেওয়া হচ্ছে বিএসএফ সদস্যদের।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/প্রতিনিধি/জেকে/১৩২০ ঘ.