ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, জানুয়ারি ০৮ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনকে চূড়ান্ত রূপ দিতে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়া এবার চট্টগ্রাম অভিমুখে রোড মার্চ শুরু করেছেন, যার শেষ হবে নতুন কর্মসূচি ঘোষণার মধ্য দিয়ে।

রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে খালেদা জিয়া গুলশানের বাসা থেকে নয়া পল্টনের উদ্দেশ্যে রওনা হন। পৌনে ১১টায় নয়া পল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয় রোডমার্চ।

এর ১৪ ঘণ্টা আগে শনিবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সসদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে নতুন কর্মসূচি চূড়ান্ত করেন খালেদা।

রোড মার্চ করে চট্টগ্রাম যাওয়ার পর সোমবার বন্দর নগরীর পলোগ্রাউন্ডে জনসভায় খালেদার এই নতুন কর্মসূচি ঘোষণার কথা রয়েছে।

একই দাবিতে এর আগে গত বছরের অক্টোবর মাসে সিলেট ও উত্তরাঞ্চলের চাঁপাই নবাবগঞ্জ এবং নভেম্বরে খুলনা অভিমুখে রোড মার্চ করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা ফেরানোর দাবিতে ৬ বিভাগেই রোড মার্চ করার ঘোষণা থাকলেও পরে রংপুর ও বরিশালের কর্মসূচি বাতিল করা হয়।

বিএনপি নেতারা বলছেন, চট্টগ্রাম রোডমার্চের মধ্য দিয়েই রোড মার্চ কর্মসূচির সমাপ্তি টানবেন খালেদা জিয়া। এরপর শুরু হবে সরকার পতনের চূড়ান্ত আন্দোলন।

কর্মসূচি কি ঠিক হয়েছে- জানতে চাইলে বিএনপি নেতারা স্পষ্ট কিছু না বললেও রাজশাহী অঞ্চলের রোড মার্চে ঢাকা অবরোধের কর্মসূচি দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন খালেদা।

রোববার স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, “প্যাকেজ কর্মসূচি ঠিক হয়েছে।

“চেয়ারপারসন চট্টগ্রামের মহাসমাবেশেই কর্মসূচি ঘোষণা করবেন,” বলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ।

এই রোড মার্চ ব্যবস্থাপনা কমিটির আহবায়ক সাদেক হোসেন খোকা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ঢাকা থেকে চার হাজার গাড়ির বহর নিয়ে আমরা যাত্রা শুরু করেছি। আরামবাগ, ফকিরা পুল, মতিঝিল, হাটখোলা, সায়েদাবাদসহ বিভিন্ন স্থান থেকে এসব গাড়ি চেয়ারপার্সনের বহরের সঙ্গে যুক্ত হবে।

“আশা করছি চট্টগ্রাম গিয়ে এই সংখ্যা দাঁড়াবে ছয় হাজারে”, যোগ করেন তিনি।

সাদা রংয়ের একটি পাজেরো জিপে করে এই রোডমার্চের নেতৃত্ব দিচ্ছেন খালেদা জিয়া। গাড়িতে তার সঙ্গে আছেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমেদ, এম কে আনোয়ার, আ স ম হান্নান শাহ, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খানসহ জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি সভাপতি অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল অলি আহমেদ, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, খেলাফত মজলিশের চেয়ারম্যান মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যার আন্দালিব রহমান পার্থ, ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব আবদুল লতিফ নেজামী, জামায়াতে ইসলামী নির্বাহী পরিষদের সদস্য আবদুল্লাহ মো. তাহের, মিয়া গোলাম পরোয়ার ও সমমনা দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা এ রোডমার্চে অংশ নিচ্ছেন।

দুইদিনের রোড মার্চের প্রথমদিন রোববার খালেদা জিয়া তিনটি পথসভা ও একটি জনসভায় বক্তব্য রাখবেন। প্রথম পথসভাটি হবে সকাল বেলা ১২টায় চান্দিনার মাধাইয়ার মুক্তিযোদ্ধা কলেজ মাঠে। এরপর চান্দিনার মানিকচরের নূর মসজিদ মাঠ ও কুমিল্লার পদুয়া ট্রাক স্টেশন প্রাঙ্গণে দুটি পথসভা হবে। বিকালে ফেনী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক জনসভায় বক্তব্য রাখবেন খালেদা জিয়া।

পরদিন বিকালে চট্টগ্রামের পোলো গ্রাউণ্ড মাঠে মহানগর বিএনপির জনসভা থেকে তিনি নতুন কর্মসূচি ঘোষণা দেবেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসএম/জেকে/১১০০ ঘ.