ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, জানুয়ারি ০৯ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- ভিকারুননিসা নূন স্কুলের ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় সাবেক অধ্যক্ষ হোসনে আরা এবং বসুন্ধরা শাখার তৎকালীন প্রধান লুৎফর রহমানের নাম আসামির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে তিন জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নিয়েছে আদালত। ওই দুই জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারিরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ মামলার প্রধান আসামি ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের শিক্ষক পরিমল জয়ধর বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। কেবল তাকে আসামি দেখিয়ে এজাহারভুক্ত আসামি হোসনে আরা ও লুৎফরের নাম বাদ দিয়ে এ মামলার পুনঃতদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছিল পুলিশ।

গত ৫ জানুয়ারি ওই প্রতিবেদনের গ্রহণযোগ্যতার ওপর শুনানি শেষে সোমবার এ বিষয়ে আদেশ দেন ঢাকার ৪ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালের বিচারক মো. আরিফুর রহমান।

বাদীর ব্যক্তিগত আইনজীবী অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান তালুকদার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “পুনঃতদন্ত প্রতিবেদনে দুই জনের নাম বাদ দেওয়া হলেও ট্রাইব্যুনাল এজাহারভুক্ত ওই দুই আসামিকে অন্তর্ভুক্ত করেই অভিযোগ আমলে নিয়েছেন। হোসনে আরা ও লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারিরও আদেশ দেওয়া হয়েছে।”

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি শুরুর বিষয়ে আদালত পরে তারিখ দেবে বলে জানান তিনি।

এর আগে গত ৫ জানুয়ারি পরিমল জয়ধর জামিনের আবেদন করলে আদালত তা নাকচ করে দেয়।

ধর্ষণের অভিযোগে ওই ছাত্রীর বাবা ভিকারুননিসার বসুন্ধরা শাখার শিক্ষক পরিমল জয়ধরের বিরুদ্ধে মামলা করার পর গত বছর ৬ জুলাই তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরিমলকে রক্ষার চেষ্টা করেছেন- এই অভিযোগ ওঠায় ছাত্রীদের বিক্ষোভের মুখে অধ্যক্ষের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় হোসনে আরাকে।

গত বছরের ২৮ নভেম্বর হোসনে আরা এবং লুৎফর রহমানকে বাদ দিয়ে শুধু পরিমল জয়ধরকে অন্তর্ভুক্ত করে তদন্ত প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। বাদীর নারাজি আবেদনে আদালত পুনঃতদন্তের নির্দেশ দিলেও আগের মতোই ওই দুই জনের নাম বাদ দিয়ে শুধু পরিমলকে আসামি করে প্রতিবেদন দেওয়া হয়।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/পিবি/জেকে/১৩২০ ঘ.