ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, জানুয়ারি ১২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতি ‘সাংবিধানিকভাবে’ যে সিদ্ধান্ত দেবেন তাতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থন থাকবে বলে জানিয়েছে দলটি।

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা এ বিষয়টি জানিয়ে আসেন। সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের প্রতিনিধি দল এ সংলাপে অংশ নেয়।

বেলা ১১টায় বঙ্গভবনে সংলাপ শুরুর পর তা ১২টা পর্যন্ত চলে। সূচনা বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি বলেন, “সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদে নির্বাচন কমিশন গঠন অর্থাৎ প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ করার জন্য রাষ্ট্রপতিকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।”

“আমি দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আলোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে চাই। আমি আশা করি, আলোচনার মাধ্যমে আপনাদের সুবিবেচনাপ্রসূত মতামত নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে”, যোগ করেন তিনি।

বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, “এটা রাষ্ট্রপাতির একটি শুভ উদ্যোগ। উনাকে আমরা বলে এসেছি, সাংবিধানিকভাবে যাদের তিনি নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ দেবেন, তার প্রতি আওয়ামী লীগের সমর্থন থাকবে।”

ইসি পুনর্গঠনে রাষ্ট্রপতি নতুন করে আইন প্রণয়ন বা সংশোধনের প্রয়োজন মনে করলে সংসদে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আশরাফ।

তিনি বলেন, “তবে আমরা আশা করছি- রাষ্ট্রপতি এমন কোনো প্রস্তাব দেবেন না- যা আমাদের কাছে প্রহণযোগ্য নয়।”

আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলে আরো ছিলেন আমির হোসেন আমু, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আব্দুল জলিল, ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মহিউদ্দিন খান আলমগীর, কাজী জাফরউল্লাহ, সাহারা খাতুন, ওবায়দুল কাদের, মোহাম্মদ নাসিম ও হাছান মাহমুদ।

এছাড়া দলের উপ দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাশও এ সংলাপের সময় উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়াল আহমেদের এই সংলাপে আসার কথা থাকলেও অসুস্থতার কারণে তিনি আসতে পারেননি বলে দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

এ টি এম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ফেব্র“য়ারির মাঝামাঝি সময়ে। আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান নতুন কমিশন নিয়োগ দেবেন।

এ নিয়োগের জন্য গত ২২ ডিসেম্বর থেকে ‘সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী ও গুরুত্বপূর্ণ’ রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে এই সংলাপ শুরু করেন রাষ্ট্রপতি। এ ধারাবাহিকতায় ১২ দিন সংলাপে অংশ নিয়ে প্রধান বিরোধী দল বিএনপিসহ মোট ২৩টি দল তাদের মতামত দিয়েছে রাষ্ট্রপতিকে।

বিএনপি চেয়ারপার্সন প্রধান খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বুধবার রাষ্ট্রপতির সংলাপে যোগ দেয়। তারা রাষ্ট্রপতিকে জানিয়েছে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালের আগে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন বিএনপি মেনে নেবে না।

পরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, “ফলপ্রসূ হবে না জেনেও আমরা সংলাপে অংশ নিয়েছি। উদ্দেশ্য একটাই, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালের দাবি রাষ্ট্রপতিকে জানানো।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এমএইচসি/জেকে/১২৩০ ঘ.