ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, জানুয়ারি ২৫ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- সেনাবাহিনীতে অভ্যুত্থানের চেষ্টা ব্যাহত হওয়ার প্রেক্ষাপটে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নস্যাতের যে কোনো চক্রান্তের বিষয়ে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান।

বুধবার জাতীয় সংসদে ভাষণে সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক জিল্লুর বলেন, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যাহত করার কোনো চেষ্টা বরদাশত করা হবে না।

গত ১৯ জানুয়ারি সেনাবাহিনী জানায়, সরকার উৎখাতে ধর্মান্ধ কতিপয় সেনা কর্মকর্তার চেষ্টা তারা নস্যাৎ করেছে।

অভ্যুত্থান চেষ্টা ব্যর্থ করে দেওয়ায় সেনাবাহিনীকে ধন্যবাদ জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, “গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যাহত এবং বাধাগ্রস্ত করার সা¤প্রতিক একটি ঘৃণ্য প্রচেষ্টা আমাদের সেনাবাহিনী নস্যাৎ করে দিয়েছে। এ জন্য দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।”

সেনাবাহিনী জানিয়েছে, গত ডিসেম্বরের এই অভ্যুত্থান চেষ্টার ঘটনার তদন্ত চলছে। দোষী ব্যক্তিদের সর্বোচ্চ সাজা দেওয়া হবে।

অভ্যুত্থানে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই সেনা কর্মকর্তাকে আটকের খবরও জানিয়েছে সেনাবাহিনী।

রাষ্ট্রপতি বলেন, “অনেক ত্যাগ-তিতিক্ষা ও আত্মত্যাগের পর দেশে সম্পূর্ণ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় দেশ পরিচালিত হচ্ছে। এ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যাহত করার কোনো অপচেষ্টা আমাদের কারো কাছেই কাম্য নয়।”

গণতন্ত্র নস্যাতের যে কোনো চেষ্টা প্রতিরোধে সবাইকে সতর্ক ও সজাগ থাকার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানে বিরোধী দলের সংশ্লিষ্টতার দিকে সরকারি দলের বিভিন্ন নেতা ইঙ্গিত করলেও প্রধান বিরোধী দল বিএনপি বলেছে, তারা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সেনা অভ্যুত্থানে বিশ্বাস করেন না।

রাষ্ট্রপতির ভাষণের সময় সরকারি দলের সদস্যরা অধিবেশন কক্ষে থাকলেও ছিলেন না বিরোধী সদস্যরা।

সংসদের বছরের শুরুর এই অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে যুদ্ধাপরাধ এবং বিডিআর বিদ্রোহের বিচার অচিরেই শেষ হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, “আন্তর্জাতিক আইন ও রীতিনীতির প্রতি সম্পূর্ণ শ্রদ্ধাশীল থেকে যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্য আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। আশা করা যায়, অনিতিবিলম্বে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হবে।”

পিলখানায় হত্যাকাণ্ডে জড়িতরাও যথোপযুক্ত শাস্তি পাবে বলে আশা করছেন রাষ্ট্রপতি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এমএইচসি/এমআই/১৯০৬ ঘ.