ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, ফেব্র”য়ারি ২৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- দেশে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড পুরোপুরি বন্ধ না হলেও দৃশ্যমানভাবে কমেছে বলে মনে করছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান। এ ধরনের ঘটনা পুরোপুরি বন্ধে মানবাধিকার কমিশন কাজ করছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মিজানুর রহমান বুধবার এলজিইডি মিলনায়তনে এক নাগরিক সম্মেলনে বলেন, “বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড দৃশ্যমানভাবে কমেছে। তবে তা শূন্যের কোঠায় নিয়ে যাওয়ার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।”

বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের কড়া সমালোচনা করে আসা মিজানুর জানান, এ ধরনের হত্যাকাণ্ড বন্ধের জন্য তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ও চিঠিপত্র আদান-প্রদান করে আসছেন।

বাংলাদেশে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সমালোচনায় দেশের মানবাধিকার সংগঠনগুলোর পাশাপাশি মুখর বিদেশিরাও। মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের হিসাবে, দেশে ২০১০ সালে ১২৭ জন বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা ১০১ জন।

২০১১ সালের প্রথম মাসে শুধু ঢাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুজন আর র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পাঁচজন নিহত হয়। এর মধ্যে নিরীহ মানুষও রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ মাসের শুরুতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি শুরু থেকেই বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরোধী এবং তা বন্ধে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যদিও তার সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী আগে থেকেই ‘ক্রসফায়ারের’ পক্ষে সাফাই গেয়েছেন।

মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান দৃশ্যমান ঘটনার কথা কমেছে বললেও স¤প্রতি মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুলতানা কামাল ‘গুম’ করে দেওয়ার ঘটনা ঘটছে উল্লেখ করে তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

মিজানুর বলেন, “আমরা এমন একটি সমাজ ব্যবস্থা তৈরির জন্য কাজ করছি, যেখানে প্রতিটি মানুষের অধিকার বাস্তবায়ন হয়।”

এলজিইডি মিলনায়তনের ওই সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশনের প্রধান কাজী খলীকুজ্জমান আহমেদ, অধ্যাপক এমএম আকাশ প্রমুখ।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এমএইচসি/এমআই/১৪১৪ ঘ.