ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, মার্চ ০৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদ থেকে অবসর নিয়ে ব্যাংকটির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেতে অর্থমন্ত্রীকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে হাতে লেখা এক চিঠিতে প্রায় একবছর আগে এ প্রস্তাব দেন ড. ইউনূস।

শুক্রবার গ্রামীণ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক (তথ্য ও গণমাধ্যম) জান্নাত-ই-কাওনাইনের পাঠানো এক প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়, ড. ইউনূস ২০১০ সালের ১৫ মার্চ অর্থমন্ত্রীকে পাঠানো এক চিঠিতে নিজে থেকেই সরে যাওয়ার একটি পরিকল্পনা দিয়েছিলেন।

এতে বলা হয়, “তিনি পুরো চিঠিটি পড়ে তাকে (অর্থমন্ত্রীকে) ব্যাখ্যা করে দিয়েছিলেন। মন্ত্রী মহোদয় সেটা পছন্দ করেছিলেন বলে ধারণা দিয়েছিলেন। এরপর প্রতিষ্ঠানটির টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে সুন্দর ও সাবলিলভাবে (অনিশ্চয়তা সৃষ্টি না হয় এমনভাবে) আনন্দমুখর পরিবেশে দায়িত্ব হস্তান্তর করার ব্যাপারে প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূসের আগ্রহের ব্যাপারে বিন্দুমাত্র সন্দেহের অবকাশ থাকে না।”

চেয়ারম্যান পদে নিয়োগের দুই প্রস্তাব

অর্থমন্ত্রীকে ড. ইউনূস চিঠিটি লেখেন ২০১০ সালের ১৫ মার্চ।

অর্থমন্ত্রীকে ‘প্রিয় মোহিত ভাই’ সম্বোধন করে ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, “আপনার হাত দিয়েই গ্রামীণ ব্যাংকের জন্ম হয়েছিল। এখন এই ব্যাংকের দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রবেশের সময় এসেছে। আমাকে এর পরিচালনার দায়িত্ব থেকে সরে আসতে হবে।

“দ্বিতীয় প্রজন্মের হাতে এর দায়িত্বভার তুলে দিতে হবে। এটা মসৃণভাবে হতে হবে। এ কাজটা আপনাকেই করে দিতে হবে। আমি সৌভাগ্যবান যে এই দায়িত্বটা আপনার উপর বর্তিয়েছে।”

ইউনূস চিঠিতে বলেন, “২৬ শে এপ্রিল (২০১০) বর্তমান চেয়ারম্যান (পরিচালনা পর্ষদের) জনাব তবারক হোসেনের মেয়াদ শেষ হবে। একে উপলক্ষ্য করে আমরা ট্রানজিশন প্রক্রিয়া শুরু করতে পারি।”

ইউনূস তার চিঠিতে দুটি বিকল্পের উলে¬খ করেছিলেন। এর একটি হলো, গ্রামীণ ব্যাংকের বর্তমান চেয়ারম্যান তবারক হোসেনের মেয়াদ ২০১০-এর ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়ে তার অবসরের পর (১ জানুয়ারি, ২০১১) তাকে (ইউনূসকে) চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেওয়া। একই সময় থেকে ব্যাংকটির বর্তমান উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নূরজাহান বেগমকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব দেওয়ার প্রস্তাব দেন ইউনূস।

তাকে চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেওয়া হলে ধারাবাহিকতা (পড়হঃরহঁরঃু) বজায় থাকে বলে অর্থমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে যুক্তি দেন ইউনূস।

তবারক হোসেনের মেয়াদ বাড়ানোয় আপত্তি থাকলে দ্বিতীয় বিকল্প হিসেবে সায়ীদুজ্জামান, ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ও খালেদ শামসের মধ্য থেকে যে কোনো একজনকে এক বছরের জন্য চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে ড. ইউনূসের চিঠিতে।

২০১১ সালের এপ্রিলে নতুন চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরবর্তী পদক্ষেপ হিসেবে ড. ইউনূসকে চেয়ারম্যান ও নূরজাহান বেগমকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক করার কথা বলা হয়েছিল ওই প্রস্তাবে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/জেকে/পিডি/০২০৬ ঘ.