ক্যাটেগরিঃ bdnews24

ঢাকা, মে ৩০ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- সাংবাদিক ও আইনজীবী নির্যাতন এবং আদালত প্রাঙ্গণে এক তরুণীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় পুলিশের ব্যাপক সমালোচনার মধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন দাবি করেছেন, পুলিশ আগের চেয়ে ‘অনেক ভালো’ হয়েছে।

বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাহারা বলেন, “বাহিনীতে এক লাখ ৪১ হাজার পুলিশ রয়েছে। এর মধ্যে যে সবাই ভালো হবে তা বলব না। তবে পুলিশকে জনবান্ধব হিসাবে গড়ার কাজ করছি।”

নিজের ডান পা দেখিয়ে তিনি বলেন, “আগের চেয়ে পুলিশ অনেক ভালো হয়েছে। আমার ডান পা ভাঙা। এ রকম ঘটনাও ঘটেছে।”

পুলিশের কোথাও ‘ব্যতয়’ ঘটলে সরকার অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “আমি রাজপথের কর্মী ছিলাম, পাকিস্তান আমল থেকে রাজপথে রাজনীতি করি। গত সাড়ে তিন বছরে পুলিশ যখন ব্যতয় করেছে তখনই অ্যাকশন নিয়েছি। ভবিষ্যতেও অ্যাকশন নেওয়া হবে।”

গণমাধ্যম পুলিশ ও সরকারের প্রতিপক্ষ কি না- এমন প্রশ্নের সরাসরি জবাব না দিয়ে সাহারা খাতুন বলেন, “মানুষ বিপদে পড়লে, দুর্ঘটনায় পড়লে, সমস্যায় পড়লে পুলিশের কাছেই যায়। চুরি, ডাকাতি হলেও সবাই পুলিশের কাছে ছুটে যায়। তখন তো পুলিশ তাদের নির্যাতন করে না।”

‘বিভিন্ন ঘটনায়’ পুলিশের গাফলতি থাকলেও সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও দাবি করেন সাহারা।

আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “সঙ্গে সঙ্গেই আমরা অ্যাকশন নিয়েছি। তদন্ত চলছে, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

মঙ্গলবার দুপুরে মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে যাওয়া এক তরুণীর সঙ্গে পুলিশের কথা কাটাকাটি হয়। এরপর পুলিশ তাকে টেনে-হিঁচড়ে আদালতপাড়ায় পুলিশ ক্লাবে ঢোকায় এবং তার শ্লীলতাহানি করে বলে প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবীরা জানান।

ওই তরুণীকে আটকের খবর পেয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে পুলিশের মারধরের শিকার হন তিন সাংবাদিক ও দুই আইনজীবী।

এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা হলে সন্ধ্যায় সহকারী উপপরিদর্শক নূরুজ্জামান সরকার ও আমির আফজাল বিপ্লবকে প্রত্যাহার করা হয়। ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি করে পুলিশ।

এর আগে গত শনিবার আগারগাঁওয়ে ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধের সময় দায়িত্ব পালনকালে প্রথম আলোর তিন আলোকচিত্র সাংবাদিককে মারধর করে পুলিশ সদস্যরা।

প্রাথমিক তদন্তের পর নয় পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করে একটি তদন্ত কমিটি করা হয়।

মঙ্গলবার এক আলোচনা সভায় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু পরামর্শ দেন, “কোথাও সাংঘর্ষিক অবস্থা সৃষ্টি হলে সেখানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করার সময় সংবাদকর্মীরা নিরাপদ দূরত্বে থাকলে অনেক ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া যাবে।”

সাহারা খাতুন অভিযোগ করেন, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ওই বক্তব্য গণমাধ্যমে ‘টুইস্ট’ করে প্রকাশ করা হয়েছে।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার আগে পরিবহন খাতে চাঁদাবাজি ও অন্যান্য সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে অংশ নেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/এসআই/জেকে/১৫৩০ ঘ.