ক্যাটেগরিঃ গ্লোবাল ভয়েসেস

 

ডিজনি চ্যানেলে প্রচারিত একটি কার্টুন বাংলাদেশে ব্যাপক বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। কার্টুনটির নাম ডোরেমন। বলা হচ্ছে, এটি দেখে শিশুরা পার্শ্ববর্তী দেশের হিন্দি ভাষা ও মিথ্যা বলা শিখছে। কার্টুনটি বাংলাদেশের শিশুদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। তারা তাদের পড়াশোনার বাইরে টেলিভিশন দেথার জন্য যে সময়টুকু পায়, তার পুরোটাই এই কার্টুনের পেছনে ব্যয় করে। আমার ব্লগের একজন মায়ের ব্লগ থেকেই বোঝা যাবে তারা ডোরেমন বলতে কতটা পাগল:

আমার পাঁচ বছর বয়সের ছেলে, ডোরেমন না দেখলে যার ভাত খাওয়া হয় না, স্কুলের হোমওয়ার্ক কমপ্লিট হয় না, রাতে ঘুম পায় না।

আবার আরেকজন মা প্রথম আলো পত্রিকায় চিঠি লিখে জানিয়েছেন:

আমার আট বছরের ছেলের স্কুল থেকে দেওয়া হোমওয়ার্ক নিয়ে ভীষণ সমস্যা। তার সঙ্গ দেওয়ার জন্য একটা ডোরেমন দরকার, যে তার সমস্যাগুলোর সমাধানও করে দেবে।

এই বিড়াল রোবটটির নাম ডোরেমন। শিশুদের কাছে অসম্ভব জনপ্রিয় সে। ছবি উইকিপিডিয়া থেকে নেয়া। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় প্রকাশিত

‘ডোরেমন’ জাপানি একটি কার্টুন। মূলত এটি একটি কমিক সিরিজ। জাপানের জনপ্রিয় ‘মাঙ্গা’ সিরিজের কমিক এটি। ডোরেমন হলো দ্বাবিংশ শতাব্দী থেকে আসা একটি ক্যাট রোবট। সে টাইম মেশিনে ভর করে আসে অতীতে অর্থাৎ বর্তমান সময়ে। তার পরিচয় ঘটে নবিতা নামের এক স্কুলছাত্রের সঙ্গে। সেখান থেকেই কাহিনীর সূত্রপাত। নবিতা খুবই ফাঁকিবাজ, অলস প্রকৃতির ছেলে। নবিতাকে বদলে দিতে ডোরেমন সবসময় চেষ্টা করে এবং ২১ শতাব্দীর বিভিন্ন গেজেট দেয়। কিন্তু নবিতা গেজেটগুলোর ভুল ব্যবহার করে।

……> বিস্তারিত