ক্যাটেগরিঃ নাগরিক কণ্ঠ

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অমীমাংসীত ছিটমহলগুলোতে গত ১৫ জুলাই/১১ ইং (শুক্রবার) জনসংখ্যা গণনার কাজ শুরু হয়েছে। লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলাধীন বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় জরিপকারী টিমের সদস্যরা প্রথমে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। সকাল সাড়ে ৯টায় একে একে প্রবেশ করেন তারা। কুচবিহার জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কেকা ঘোষের নেতৃত্বে তারা বাংলাদেশে আসেন। এসময় ভারতীয় হেড কাউন্টিং দলের সদস্যদের শুভেচ্ছা জানায় লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী ও পঞ্চগড় জেলা থেকে আসা সরকারি কর্মকর্তারা। এরপর সকাল সাড়ে ১০টায় রংপুর আঞ্চলিক পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আব্দুল হালিমের নের্তৃত্বে বাংলাদেশের ৬১ সদস্যে হেড কাউন্টিং দলটি বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে কুচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধায় প্রবেশ করেন। এসময় ভারতীয়রা ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

ভারতীয় ৯৬জন সদস্যের হেডকাউন্টিং দলটি পাটগ্রামের বুড়িমারী হাসর উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে আসার পর সেখানে রংপুর বিভাগের লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী ও পঞ্চগড় জেলার অভ্যন্তরের ছিটমহলের জনসংখ্যা গণনার জন্য ৪টি ভাগে বিভক্ত হয়ে দায়িত্ব প্রাপ্ত জরিপকারীরা জেলায় চলে যান। তবে ওই বিদ্যালয়ে ভারতীয় জরিপকারীদের সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষন দেওয়া হয়। প্রশিক্ষন শেষে লালমনিরহাট জেলার দায়িত্ব প্রাপ্ত জরিপকারীরা ৬ জন সদস্য মিলে এক একটি করে টিম গঠন করে জরিপ কাজ শুরু করেন। ভারতীয় ওই ছয় সদস্যের দলটির সঙ্গে রয়েছে বাংলাদেশী ছয় জন সদস্য। বাংলাদেশি সদস্যরা ভারতীয় জরিপকারীদের সহযোগিতা করছেন। লালমনিরহাটের অভ্যন্তরে ভারতীয় ৫৯টি ছিটমহলের মধ্যে প্রথম জরিপ কাজ শুরু করা হয় পাটগ্রাম উপজেলাধীন শ্রীরামপুর ইউনিয়নের অভ্যন্তরের ভারতীয় ১৬ নং ভোট বাড়ী ছিটমহলে।

পুরো নিউজ পড়তে ক্লিক করুন এখানে