ক্যাটেগরিঃ গ্লোবাল ভয়েসেস

এ মাসের শুরুতে সামরিক বাহিনী এবং কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদী দল পিকেকে-এর মধ্যে সংর্ষের ঘটনা ঘটে। তাতে উভয় পক্ষ নিজেদের ডজন খানেক ব্যক্তি নিহত হয়েছে বলে দাবী করেছে। এর ফলে তুরস্কে জাতিগত উত্তেজনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। ২১ জুলাই তারিখে ইস্তাম্বুলের জেইতুনবুরনু এলাকায় এক বড় আকারের সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে, যখন উগ্র জাতীয়তাবাদী তুর্কী একটি দল পিকেকেপন্থী বিডিপে দলের অফিস অভিমুখে যাত্রা শুরু করে এবং সেটি আক্রমণের চেষ্টা করে। এর ফলে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে হাজির হয় এবং কয়েক ঘণ্টাব্যাপি সংঘর্ষের পর তারা সেই এলাকা দখল নিতে সমর্থ হয়। সামাজিক প্রচার মাধ্যমে এই ঘটনার পর এই বিষয়ে এবং এর উপর সংবাদ প্রদানে এক বিশেষ ভুমিকা পালন করে, যেমনটা এই সম্মিলিত যাত্রা বা মার্চের সংগঠকরা সামাজিক প্রচার মাধ্যমের মধ্যে দিয়ে নিজেদের সংগঠিত করেছে।

ফেসবুকের একটি পাতা ২১ জুলাই, ৫৮ বুলভার জেইতিনবুরনু-এ অবস্থিত বিডিপি অফিসের দিকে মার্চ করে যাবার জন্য লোকদের একত্রিত করার কাজে ব্যবহার করা হয়েছে। ইউটিউবের একটি ভিডিও প্রদর্শন করছে যে উগ্র জাতীয়তাবাদীরা “শহীদেরা কখনো মারা যায় না!” স্বদেশ কখনো বিভক্ত হয় না! স্লোগান দিতে দিতে জেইতিনবুরনু-এর রাস্তা ধরে এগিয়ে যেতে থাকে।

সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়তে ক্লিক করুন এখানে