ক্যাটেগরিঃ bdnews24

 

ঢাকা, জানুয়ারি ২২ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- পুঁজিবাজারের অস্থিরতার জন্য অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ।

একইসঙ্গে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এর কর্মকর্তাদেরও পদত্যাগ চেয়েছেন তিনি।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ বলেন, “পুঁজিবাজার থেকে ৯ হাজার কোটি টাকা লোপাট হয়েছে। কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা সরকার ভালো করেই জানে। এ ঘটনায় ভুল সিদ্ধান্ত ছিলো বলে স্বয়ং অর্থমন্ত্রী স্বীকার করেছে। তাই অর্থমন্ত্রীসহ এসইসি ও ডিএসই’র কর্মকর্তাদের পদত্যাগ করা উচিৎ।”

পুঁজিবাজারে চলমান অস্থিরতার দায় স্বীকার করে অর্থমন্ত্রী শুক্রবার বলেন, “পুঁজিবাজার পরিচালনায় নিশ্চয়ই এসইসি কর্তৃপক্ষের ভুল হয়েছিলো। তা না হলে পরিস্থিতি এ রকম হতো না। ভুল আমারও হয়েছে।”

এর একদন পরই মুহিতের পদত্যাগ দাবি করলেন এইচ এম এরশাদের মন্ত্রিসভায় তার সঙ্গে থাকা মওদুদ। এরশাদের সময় মুহিত যখন অর্থমন্ত্রী ছিলেন, তখন মওদুদ ছিলেন যোগাযোগমন্ত্রী। পরে মওদুদ প্রধানমন্ত্রীও হন।

পুঁজিবাজারের ‘অনিয়ম’ দুর্নীতি দমন কমিশনের মাধ্যমে তদন্তেরও দাবি করে মওদুদ বলেন, “সরকারের দুই বছরে অনেক দুর্নীতি হয়েছে, এই স্বাধীন প্রতিষ্ঠানটি (দুদক) কোনো কিছুই করেনি। তারা যে স্বাধীন, তা এবার প্রমাণ করুক।”

“আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে, তখনই পুঁজিবাজারে অস্থিরতা ও লুটপাট হয়। ১৯৯৬ সালে তাদের শাসনামলে ৬০০ কোটি টাকা লোপাট হয়েছিলো”, বলেন মওদুদ।

তিনি বলেন, ওই সময়ে শেয়ারবাজারের ধসের বিরুদ্ধে মামলা হলেও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

এবারও পুঁজিবাজারে ৯ হাজার কোটি টাকা লোপাট হয়েছে বলে দাবি করলেও এ তথ্যের উৎস জানাননি মওদুদ।

স্বদেশ জাগরণ পরিষদ নামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে ‘আধিপত্যবাদী আগ্রাসন ও একদলীয়, অগণতান্ত্রিক অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মওদুদ।

‘৭২ সালের সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ পুনর্বহালের বিষয়ে সরকারি দলের সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতের সঙ্গে সহমত পোষণ করে সংসদ সদস্য মওদুদ বলেন, “শুধু সুরঞ্জিত বাবু বললেই হবে না, প্রধানমন্ত্রীকেও এ বিষয়ে তাদের অবস্থান স্পষ্ট করতে হবে।”

১৯৭২ সালে প্রণীত সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সংসদের কাছে বিচার বিভাগের জবাবদিহি বাধ্যতামূলক, যা পুনরুজ্জীবনের কথা বলেছেন সুরঞ্জিত।

বিচার বিভাগের জবাবদিহিতা কারো কাছে নয়, শুধু জনগণের কাছে- প্রধান বিচারপতির এ বক্তব্যের প্রসঙ্গে সাবেক আইনমন্ত্রী মওদুদ বলেন, “প্রধান বিচারপতি বলেছেন, তারা (বিচার বিভাগ) জনগণের কাছে জবাবদিহি করেন। কিন্তু আমার মত হচ্ছে- বিচারবিভাগ কি ১৬ কোটি জনগণের কাছে গিয়ে জবাবদিহি করতে পারবেন। ১৬ কোটি জনগণের প্রতিনিধিত্ব করছে এই সংসদ।”

মওদুদ বলেন, সংসদ না থাকায় রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ওই বিধান সংশোধন করে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল গঠনের বিধি বিধান সংযোজন করেন।

প্রেসক্লাবের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি-মতিন) মহাসচিব আবু নাসের মো, রহমতুল্লাহ, বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা খোরশেদ আলম মিয়া, শ্যামা ওবায়েদ ও মহিলা দলের সাংস্কৃতিক সম্পাদক অপর্ণা রায়। এতে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান।