ক্যাটেগরিঃ গুগল-ফেসবুক

 

‘কোন মুসলমানের মৃত‌্যুই অকাল মৃত‌্যু নয়’ একজন মন্ত্রীর এমন মন্তব্যের প্রেক্ষিত ছিলো ট্রাকের তলায় পিস্ট হয়ে দুই মটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু। মন্ত্রীর এমন অবিবেচক মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা ও ব্যাঙ্গ বিদ্রুপ পরিলক্ষিত হয় ফেসবুকে। যেমন জনপ্রিয় ব্লগার আসিফ এন্তাজ রবি তার সাম্প্রতিক ফেসবুক স্টাটাসে উল্লেখ করেছেন,

গতকাল ট্রাকের তলায় পিস্ট হয়ে দুইজন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। হেডিংটা পড়ে প্রথেম মনটা খুব খারাপ হয়ে গিয়েছিলো। পরে নিউজ পরে স্বস্তি পেলাম। দুইজনই মুসলমান । একজনের বয়স ২৬, আরেকজনের ২৩। মন্ত্রী বলেছেন, কোন মুসলমানের মৃত‌্যুই অকাল মৃত‌্যু নয়। সৌদি আরবে যে ৮ জনের গলাকেটে মৃত‌্যুদন্ড দেয়া হয়েছে, তারাও সকলে মুসলমান। হে আল্লাহ, তুমি আমাকে বাঙালি মুসলমান হওয়ার হাত থেকে নাজাত দাও। যদি আমি মুসলমান থাকি, তাহলে বাংলাদেশে থাকবো না আর যদি বাংলাদেশে থাকি তাহলে মুসলমান থাকবো না। হয়ে যাবো, মাইকেল রবি গোমেজ অথবা রবি বড়ুয়া কিংবা শ্রী রবি ঘোষ। আল্লাহ, তুমি আমাকে রহম করো।

তিনি আরো উল্লেখ করেছেন,

আমার বিখ্যাত হওয়ার দরকার নাই। আমি বাঁচতে চাই। আল্লাহ কৌশলী এটা আমিও জানি। তিনি কেবল কৌশলী নন, তিনি সর্বজ্ঞাত। কাজেই আমি যদি নাফরমানি করে থাকি, সেটা একমাত্র আল্লাহই বুঝবেন। বাঙালি মুসলমানরা যেমন বুদ্ধিহীন, আল্লাহকে তারা বেকুব ভাবেন। দোয়া দরুদ সব আরবীতে পড়া হয়। আমাদের ধারণা , আল্লাহ বাংলা, ইংরেজী- ইত্যাদি বুঝেন না। মাইকে কোরান শরীফ খতম দেয়া হয়। এর পেছনে ধারণা কি? আল্লাহ কানে কম শোনেন ?

ভাই, আমি আল্লাহর উপর পুরোপুরি ভরসা রাখি। আল্লাহতে আমরা বিশ্বাস সম্পূর্ণ অটল। এজন্য দেশের এই অবস্থায় আমি মনে করি, সবাই মিলে আল্লাহকে ডাকলে নিশ্চয়ই তিনি আমাদের ডাকে সাড়া দেবেন। আমাদের শান্তি দেবেন। মন্ত্রীর কথার কোনো প্রতিবাদ করতে গেলে, আপনাকে পুলিশ পিটাবে। ব্লগ লিখলে ডিবি ধরে নিয়ে যাবে। কিছু করার উপায় নাই। একমাত্র আল্লাহকে ডাকা ছাড়া। আসুন, আল্লাহকে ডাকি। আল্লাহ আমাদের মুক্তি দিন, শান্তি দিন। সবাই একযোগে আমিন বলেন। যে অবস্থা চলছে, আল্লাহর ইশারা ছাড়া বাঁচার উপায় নাই।

রবির স্টাটাসে মন্তব্য করতে গিয়ে Proshanta Roy জিজ্ঞেস করেছেন,

রবি, আমি অমুসলিম, আমার কি অকাল মৃত‌্যুর সম্ভাবনা আছে?

সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন মন্ত্রীর নানাবিধ অবিবেচনাপ্রসূত ও রাজনৈতিক প্রজ্ঞা হীন মন্তব্যে ফেসবুক সহ নানান সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাঙ্গ-বিদ্রুপের পরিমাণ ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে।