ক্যাটেগরিঃ প্রিয়

 

১৯৯৫ সালে পাকিস্থানের পাঞ্জাবে জন্ম, সেখানেই বেড়ে ওঠা। শৈসব টা আর দশ টা ছেলেমেয়ের মতোই স্বাভাবিক ছিল। তবে অন্যদের মতো খেলাধুলা নয়, তাঁর আগ্রহ ছিল কম্পিউটার নিয়ে, কম্পিউটিং নিয়ে। মাত্র ৮ বছর বয়সেই তাই সাধারণ কম্পিউটিং শেষে প্রোগ্রামিংয়ের মতো বিষয়গুলোতেও অভ্যস্ত হয়ে যায় এ ক্ষুদে কম্পিউটার ‘প্রডিজি’। মাইক্রোসফটের ডটনেট, ভিজ্যুয়াল স্টুডিও ৬.০ এবং উইন্ডোজ সার্ভার ২০০৩ এর মতো প্রোগ্রামে ব্যাপক দক্ষতা তাকে মাত্র ৯ বছর বয়সে ‘মাইক্রোসফট সার্টিফায়েড প্রফেশনাল’ হিসাবে সনদ এনে দেয়।

মাইক্রোসফটের গ্রুরুত্বপূর্ণ এবং সম্মানজনক এ সনদপ্রাপ্তদের তালিকায় সবচেয়ে কম বয়সী হিসাবেও নাম ওঠে তাঁর। কনিষ্ঠ এ কম্পিউটার প্রডিজি কে দেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস নিজে, আহ্বান জানান যুক্তরাষ্ট্রে।

এতক্ষণ ধরে যার গল্প করা হচ্ছে তাঁর নাম আরফা, পুরো নাম আরফা কমির রানধওয়া। পাকিস্থানের জন্ম নেয়া এ কম্পিউটার প্রডিজি মাইক্রোসফট সার্টিফাইড প্রফেশনালস সার্টিফিকেট পাওয়ার পর বিশ্বব্যাপী বেশ আলোচনায় আসে। মাইক্রোসফট অফিস ঘুরে আসার পর কম্পিউটার শিক্ষায় তার অগ্রগতিকে সম্মান জানায় পাকিস্থান সরকারও। ২০০৫ সালে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে পাকিস্তান সরকারের দেয়া ফাতিমা জিন্ন স্বর্নপদক পায় আরফা। পায় সালাম পাকিস্থান ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড এবং প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড অব পারফর্মেন্স এর মতো অ্যাওয়ার্ডও।

….>বিস্তারিত