ক্যাটেগরিঃ গ্লোবাল ভয়েসেস

আর্থ আওয়ার’ বিশ্বব্যাপী প্রকৃতি তহবিল (ডাব্লিউডাব্লিউএফ) আয়োজিত একটি বিশ্বব্যাপী সচেতনতা অনুষ্ঠান, যা প্রতি বছর মার্চ মাসের শেষ শনিবারে পালিত হয়ে থাকে। জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে এই দিনে গৃহস্থালী এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে একঘণ্টার জন্যে তাদের অপ্রয়োজনীয় আলোগুলো নিভিয়ে রাখতে অনুরোধ করা হয়। ২০১১ সালের আর্থ আওয়ারে বিশ্বব্যাপী ১৩৫টি দেশের ৫,২০০-এরও বেশি শহর তাদের আলো নিভিয়ে রেখেছিলো এবং এবছর ঢাকা, বাংলাদেশ–এর মতো আরো অনেক শহর যোগ দিচ্ছে।

দক্ষিণ এশিয়া জ্বালানী বুভুক্ষু অনেকগুলো উন্নয়নশীল দেশের অঞ্চল। ভারতীয় এই উপমহাদেশে কোটি কোটি জনগণের বিদ্যুৎ সংযোগ নেই এবং জ্বালানী ও শক্তি ক্ষেত্রটি দুর্নীতি এবং অদক্ষতা সমস্যায় জর্জরিত। সরবরাহের তুলনায় চাহিদা অনেক বেশি হওয়ায় অনেক দেশই বিদ্যুৎ বিতরণ নিয়ন্ত্রণ করতে লোডশেডিং (পরিকল্পিতভাবে বিদ্যুৎ বন্ধ) ব্যবহার করে।

প্রতিদিনের পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে নেপাল, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশে ৪ থেকে ১২ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়ে থাকে। আর্থ আওয়ার পালনের বিষয়টি নিয়ে নেটনাগরিকেরা সামাজিক মিডিয়াতে কথা বলেছে। কেউ কেউ আর্থ আওয়ার পালনের অনুরোধ করলেও অন্যেরা একে এটাকে একটা কৌতুক ছাড়া অন্যকিছুই মনে করছেন না। এই অঞ্চল থেকে করা নিচের টুইটগুলোতে তাদের মনের কথার প্রতিফলন ঘটেছে:

বাংলাদেশ:

@কাজীআহাদকাদের (কাজী আ. কাদের): “@ডেইলিষ্টারনিউজ বাংলাদেশ আজ রাতে প্রথমবারের মতো আর্থ আওয়ার পালন করবে…” এরকম গালভরা নাম রাখার অনেক আগে থেকেই আমরা এটা করছি।

…..>বিস্তারিত