ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

– তাহলে শাহবাগের এখন এই অবস্থা?
– হুম! আজ আরিফ ভাইয়ের একটা ফেসবুক পোস্ট কি একটা নিউজসাইটে যেন দেখলাম..
– কোন আরিফ ভাই? আরিফ জেবতিক?
– হুঁ
– কি লিখেছেন আরিফ ভাই?
– এই যে শাহবাগ তিনভাগ হইছে। এইসব নিয়ে রাজনীতি আর উনাকে নিয়ে উল্টাপাল্টা অভিযোগে কেমন যেন মন খারাপ টাইপ লেখা..
– উনাকে নিয়ে আবার কি অভিযোগ?
– ওই যে বাপ্পাদিত্য বলেছে আরিফ ভাই নাকি হামলা করেছে অন্য গ্রুপের ওপর। উনি ছাত্রদল করেন। গণজাগরণ মঞ্চে উনি অনুপ্রবেশ করেছেন.. এই টাইপ কথাবার্তা..
– ও, বাপ্পাদিত্যর কথা তো পত্রিকায় দেখলাম..। শিবিরও নাকি আছে ইমরান সরকারের সাথে.. হা হা হা হা..
– ঘটনা কি হলো বলেন তো ভাইজান..
– দ্যাখ, এখানে কিছু পোলাপান আছে ভেজাল ছাড়া, তাদের জন্যই খারাপ লাগে.. যেগুলো ধান্দা লুটতে আইছে, ওইগুলিই জিনিসটারে নষ্ট করছে.. সমস্যা হলো ধান্দাবাজগুলাই কেমন জানি স্টিয়ারিং-এ আছে মনে হচ্ছে.. কি ছিল আর কি হলো..
– আরিফ ভাইয়ের লেখায় মনে হলো, আর হয়তো উনি এইসব আন্দোলনে যাবেন না, লেখালেখিটা শুধু চালিয়ে যাবেন..
– আমার কিন্তু এরকমটা আগেই মনে হয়েছিল.. কয়েকটা ঘটনার পরে আর যাইতে ইচ্ছা করে নাই..
– হুঁ!
– শোন, এই যে সাঈদীর রায় হলো.. মনে হয় আঁতাত আঁতাত ভাব, আবার মনে হয় আঁতাত নেই, কিন্তু স্বার্থ একটা যেন আছে.. এই ফিলিংসটা সত্যি.. এইসব দেখে শুনে মনে হয় আমরা সবাই একই টাইপ.. আমাদের নিজেদের এত এত গলদ.. এত স্বার্থবাজি.. ধান্দাবাজি.. শালা, আমাদের লিডাররা কি ফেরেশতা হবে.. আমাদের কপাল খাবার আরও বহুদিন থাকবে.. বহুদিন.. যতদিন আমরা নিজেরা অনেস্ট না হবো.. ততদিন ধান্দাবাজরাই আমাদের লিডার হবে.. দেশ চালাবে.. আঁতাত হবে.. খেলা হবে.. এখন আমরা শুধরাবো কি-না, এই ডিসিশান আমাদের.. নিজেদের.. পার্সোনাল ডিসিশান.. অন্যরে গাইলাইয়া কোন লাভ নাই.. … চল যাই.. বহুত বকছি..