ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

 

পৃথিবীর সব দেশেই মোটামুটি তিনটি স্তর এর মানুষ রয়েছে। উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত আর নিম্নবিত্ত। যেহেতু স্রষ্টার সৃষ্টির শুরু থেকেই এই ভেদাভেদ তাই একে বৈষম্য বলে আখ্যায়িত করলাম না। তিন স্তর এর এই মানুষের চাহিদা, প্রয়োজন এর ব্যাপ্তি কিন্তু ভিন্ন। লাইবেরিয়ার রাজধানীর নাম মনরোভিয়া যেখানে এই দেশের মোট জনসংখ্যার(৪৩,১৩,১৫২) প্রায় ৪ ভাগের এক ভাগ মানুষের বসবাস। এই দেশের ৭৬ ভাগ মানুষ দারিদ্র সীমার নিচে বাস করছে। লেবাণন, ভারত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে গত ৪০ বছর ধরে ব্যবসা করে যাচ্ছে এখানে। আর দারিদ্র সীমার নিচে বসবাসকৃত মানুষগুলো খেটে যাচ্ছে ওদের গোলাম হিসেবে আর ঠেলে যাচ্ছে মনিব এর গাড়ি দিন শেষে দুটি রুটি খাবার আশায়। জানিনা কবে শেষ হবে ওদের এই বেচে থাকার সংগ্রাম কিংবা অভিমান।

এই শহরে অনেক জ্যাম। কাল আরও একটি জ্যামময় দিনে হেডফোনে গান শুনতে শুনতে তাকিয়ে ছিলাম একটা ফার্নিচার এর দোকানের সামনে। দেখলাম নতুন একটি শোকেস বাধা হচ্ছে ঠেলাগাড়িতে তার গন্তব্যে নিয়ে যাবার জন্যে। ঠেলাগাড়ির চালক খুব যত্ন নিয়ে কাজটি করছেন। নিজের কাজের প্রতি তার শ্রদ্ধাকে সম্মান জানালাম মনে মনে। কিন্তু পরক্ষনেই তার চোখের দিকে তাকিয়ে খানিকটা লজ্জাই পেলাম। অতৃপ্তি আর অভিযোগে ভরা ছিল ওই চোখ দুটো। অতৃপ্তি তার প্রাপ্য পারিশ্রমিক এর অভাবে আর অভিযোগ সমাজের উচ্চবিত্ত আর মধ্যবিত্ত মানুষদের প্রতি যারা তাদের দায়িত্ত এড়িয়ে চলছে। এই দায়িত্ত এড়ানোর দায় থেকে মুক্ত হওয়া কী খুব কঠিন কিছু?

আসবার কালে কি জাত ছিলে
এসে তুমি কি জাত নিলে
কি জাত হবে যাবার কালে
সে কথা ভেবে বলনা ………(লালন)