ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

ভাল উদ্যোগ। কিন্তু দুই নেত্রী এক টেবিলে বসলেই দেশের সকল সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে এমন ধারণা মোটেই ঠিক নয়। বরং দুই নেত্রীর রাজনৈতিক আচার, আচারণ, কথাবার্তায় গণতান্ত্রিক মন-মানসিকতার প্রতিফলন থাকা প্রয়োজন যা তাঁদের মধ্য একেবারেই কম লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দেশের সাধারণ মানুষ কী চায় তা অনুধাবন করে তাঁরা যদি নিজ নিজ রাজনৈতিক কর্মসূচী গ্রহণ করে এবং তা গণতান্ত্রিকভাবে বাস্তবায়নের চেষ্টা চালায়, নেতৃত্ব দেয় তাহলে দুই নেত্রী এক টেবিলে না বসলেও দেশেরও মঙ্গল হবে এবং দুই নেত্রীরও মঙ্গল হবে।

এক জন জাতির জনকের নির্মম হত্যাকান্ডের দিন, জাতীয় শোক দিবসের দিনে মহা খুশীতে চামচাদের আনা বিশাল আকারের কেক কাটবেন নিজের একাধিক জন্ম তারিখ থাকা সত্বেও আর একজন কথায় কথায় সুয়োগ পেলেই নির্মম হত্যাকান্ডের স্বীকার মরহু জিয়াউর রহমানের কৃতকর্মের উপর রাজনৈতিক খোঁচা মেরে কথা বলতে থাকবেন আর আপনি বেহুদা দুই নেত্রীকে একটেবিলে বসানোর উদ্যোগে আপনার ব্যারিস্টারি জীবনের মূল্যবান সময় নষ্ট করবেন তার কোন মানে হয় না।

আপনি বরং দুই নেত্রীর চামচাগিরি না করে বাংলাদেশের বিপর্যস্থ মানবাধিকার রক্ষার জন্য আপনার গড়া মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার মাধ্যমে আপনার পেশাগত দক্ষতা কাজে লাগিয়ে দেশের সাধারণ মানুষকে সেবা দেয়ার মাত্রা বৃদ্ধি করুন তাতেও দুই নেত্রীর কিছুটা হলেও সংশোধন হতেও পারে।