ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

সকাল ৮টা ৩০মিনিট, ধানমন্ডি ।
অনেক লোক একটি চারতলা বাড়ীর সামনে জড় হয়েছে। পুলিশ ও সিআইডি’র সদস্যরাও সেখানে উপস্থিত। ঘতনাতা হচ্ছে, গত রাতে এই বাড়ীর তিন তলায় একজন তরুন সাংবাদিক খুন হয়েছে। সিআইদি’র সদস্যরা ঘতনাস্থল খুঁটে-খুঁটে পর্যবেক্ষণ করছে। এদিকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান মুখপাত্র মিডিয়ার সামনে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আসামীদের গ্রেপ্তার করা হবে।
৪৮ ঘণ্টার পর………..।

আসামীরা ধরা পড়েছে । পুলিশ, সিআইডি ও RAB বাহিনীর যৌথ অভিযানে তদন্ত সফল হয়েছে এবং খুনের মতিভ জানা গেছে।
———————***————————
উপরের ঘটনাটা কিন্তু বানানো । গল্প ছাড়া কিছুই না। বাংলাদেশে থেকে এতকম সময়ে একটি তদন্তের সফলতার কথা চিন্তা করাও কষ্টকর।
>এই বছর ১১ই ফেব্রুয়ারী সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যার আসামীদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ধরার কথা থাকলেও তা আজও সম্ভব হয়নি। খনো কোন কূলকিনারা করতে পারেনি বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী।
>১৭ই এপ্রিল বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী গুম হয়। এটাও অমীমাংসিত।
> সম্প্রতি বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডের বিচার নিয়েও উঠেছে গুঞ্জন। একটি সুত্র থেকে জানা গেছে, বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডের সময় পুলিশ সদস্যরা আশেপাশেই ছিল, কিন্তু বিশ্বজিৎ রক্ষায় কেউ আগিয়া যায়নি। তাছারা হত্যাকাণ্ডের তদন্ত নিয়েও উঠেছে নানা প্রশ্ন।
…………তাহলে বলুন, আমরা এদেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর ওপর কিভাবে আস্থা রাখব?
______________________________________________________________
তথ্যধারঃ
* বাংলাদেশ-প্রতিদিন(২২.১২.১২)
* উইকিপিদিয়া