ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হবার সাথে সাথেই শুরু হয়ে যায় ভর্তি প্রতিযোগিতা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শুরু হয় এই উন্মাতাল প্রতিযোগিতার পর পর। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৯৫ শতাংশ বিষয়ে ইংরেজিতে শিক্ষাদান করা হয়। ১২ বছরের সুদীর্ঘ বাংলা মাধ্যমের শিক্ষা জীবন শেষে হটাৎ করেই ইংরেজি মাধ্যমের মাঝে পরা। এরপর অধিকাংশ শিক্ষার্থীর ডিকশনারি নিয়ে সুদীর্ঘ কষ্টের এক পথচলা। উচ্চতর শিক্ষা যদি আমাদের ইংরেজিতেই নিতে হয়, তাহলে প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে বাংলা শিক্ষা নামের এই প্রহসন কেন? কেন প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক এর বিষয়গুলো ইংরেজিতে হবেনা? কেন ইংরেজি মাধ্যম এনং বাংলা মাধ্যমের মাঝে শুরু থেকে বৈষম্য গড়ে তুলে ইংরেজি মাধ্যমের সাগরে আধা বুড়ো বয়সে ছেড়ে দেয়া হবে? আমার বাপ চাচাকে দেখেছি টাস টাস করে ইংরেজি বলতে। তারা উচ্চমাধ্যমিক এর গণ্ডি পেরিয়ে আর বেশি কিছু করতে পারেনি। কিন্তু তাদের ভাষাগত দক্ষতা ইংরেজি এবং বাংলাতে সমানভাবে ছিল। ৫২ এর ভাষা আন্দোলনে রক্ত দিয়ে আমরা ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছি এটা যেমন সত্য, তেমনি এটাও সত্য স্বাধীনতা পূর্ব বাংলাদেশের শিক্ষার মাধ্যম ছিল ইংরেজিতে। এবং তখন কারোর এই ব্যাপারে আপত্তি ছিল না। আমার ব্যক্তিগত অভিমত হল, এই দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় যেন এই দেশের ছেলেমেয়েরা মাথা উঁচু করে দাড়াতে না পারে বিশ্ব দরবারে সেই কারণে সুকৌশলে এক দেশে দুই শিক্ষা নীতি চালু করা হয়েছিল। এই সাধারণ ঘরের বাচ্চাদের জন্য বাংলা মাধ্যম আর তথাকথিত এলিট সম্প্রদায়ের জন্য ইংরেজি মাধ্যম (এই দেশের শিক্ষানীতি আবার এলিট সম্প্রদায়ের দ্বারাই সৃষ্ট করা কিনা!)।

এখন প্রশ্ন হল, এভাবে আর কতদিন? বাংলিশ হয়ে আর কতদিন এই জাতিকে বাঁচতে হবে? কেন নতুন শিক্ষানীতি প্রণীত হবেনা দেশের এবং দেশের মানুষের কল্যাণে? কেন আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে যাবার সবচেয়ে বড় বাধা হবে ইংরেজি?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, একটু ভেবে দেখবেন কি? বাংলা মাধ্যমে আপনারা বিশ্বব্যাপী উচ্চশিক্ষা নিশ্চিত করতে পারছেন না, এমনকি নিজের দেশে ও না। আপনি দেশের বাইরে কারো সাথে কথা বললে বলেন ইংরেজিতে। তাহলে ভাষার প্রতি ভালবাসার নামে কেন এভাবে শিক্ষার্থীদের হয়রানি করা? কেন উচ্চ শিক্ষায় আমাদের সুযোগ কমে যাবে একমাত্র ইংরেজি ভাষায় কম দক্ষতার কারণে? কোন দেশের মানুষ তার মাতৃভাষা ভুলে যায়না, না দুনিয়ার শুরু থেকে কেউ ভুলে গিয়েছে। আমাদের মাতৃভাষার প্রতি ভালবাসা থাকবে, আমরা বাংলায় কথা বলবো। কিন্তু একদম বাচ্চা অবস্থা থেকে আমাদের শিক্ষার মাধ্যম হোক ইংরেজি। শুরু হোক নতুন দিনের পথ চলা।